সকাল ৮:১৮ শুক্রবার ৪ঠা ডিসেম্বর, ২০২০ ইং

ব্রেকিং নিউজ:

কুমিল্লা দেবিদ্বারে ৫০ টাকার লোভ দেখিয়ে ৭ বছরের শিশুকে ধর্ষণ। | কুমিল্লা সদরে ডিবি পুলিশের অভিযানে অস্ত্র ও ৫ শত পিছ ইয়াবাসহ এক এক যুবক। | সিলেট চেম্বারের পরিচালনা পরিষদের ২০১৯-২০২১ সাল মেয়াদের দ্বি-বার্ষিক নির্বাচন অনুষ্ঠিত | কুমিল্লা সদর দক্ষিণে যাত্রীবাহি বাসচাপায় ৩ মোটরসাইকেল আরোহী নিহত। | মাধবপুরে দুই কেজি গাঁজা সহ ২ মাদক পাচারকারী আটক | ছেলের জন্য সকলের কাছে দোয়া চাইলেন ক্রিকেটার রুবেল | পুত্র সন্তানের বাবা হলেন রুবেল, মা-ছেলে দুজনেই সুস্থ আছেন | মাদক চোরাকারবারীদের ফাঁদে পরে, বিলিনের পথে মাধবপুরের চা শিল্প! | কুমিল্লা সদরে ট্রেনে কাটা পড়ে দুই ষ্কুল শিক্ষার্থী নিহত। আহত-৩ | কুমিল্লায় গোয়েন্দা পুলিশের অভিযানে ৫ হাজার পিছ ইয়াবাসহ সাংবাদিক শামীম আটক। |

ধর্ষণের অভিযোগে হুমকি, মা-মেয়ে গ্রামছাড়া

নিউজ ডেস্ক | জাগো প্রতিদিন .কম
আপডেট : June 3, 2018 , 8:11 am
ক্যাটাগরি : অপরাধ ও দুর্নীতি
পোস্টটি শেয়ার করুন

কুমিল্লার মুরাদনগর উপজেলার কামাল্লা গ্রামে এক হিন্দু প্রতিবন্ধী মেয়েকে (১৬) গণধর্ষণের অভিযোগ উঠেছে। এ ঘটনায় মা বাদী হয়ে মামলা করায় অভিযুক্তরা হত্যার হুমকি দেয়। এতে মা-মেয়ে এখন গ্রামছাড়া।

অভিযুক্তরা হলেন- উপজেলার কামাল্লা গ্রামের জামাল ও একই গ্রামের আরিফ।

মামলা ও সরেজমিনে জানা গেছে, গত ১৩ মে সন্ধ্যায় প্রতিবন্ধী মেয়েটি বাড়ির পাশেই টিউবয়েল থেকে পানি আনতে যায়। ওঁৎ পেতে থাকা জামাল, আরিফ ও তাদের সহযোগীরা মুখ চাপা দিয়ে তাকে কামাল্লা ইউনিয়ন পরিষদের পাশে পরিত্যক্ত তাঁতী বাড়িতে নিয়ে গণধর্ষণ করে। পরে ভোররাতে একই গ্রামের শরিফ মিয়া প্রতিবন্ধী মেয়েটি বাড়িতে ফিরিয়ে দেয়।

এ ঘটনায় মেয়েটির মা পরদিন ১৪ মে স্থানীয় ইউপি মেম্বার জামালকে ঘটনাটি জানান। কিন্তু ঘটনার ১৮ দিন পার হলেও কোন বিচার না পেয়ে অসহায় মা বাদী হয়ে জামাল ও আরিফ দুজনের নাম উল্লেখ করে শনিবার মামলা করেন। এখবর এলাকায় ছড়িয়ে গেলে অভিযুক্তরা মা মেয়েকে হুমকি দেয়। এর পর থেকে মা-মেয়েকে আর দেখা যাচ্ছে না।

মা আরতি রানির মোবাইল ফোনে যোগাযোগ করা হলে তিনি জানান, মেয়েটি টিওবয়েল থেকে পানি আনতে গিয়ে তার ফিরতে দেরি হলে, বের হয়ে প্রথমে আমি তাকে খোঁজাখুঁজি করে না পেয়ে লোক নিয়ে খোঁজেও তাকে পাইনি। পরে রাত তিনটার দিকে অচেতন অবস্থায় শরিফ বাড়িতে নিয়ে আসে। শরিফকে জিজ্ঞাসা করি কই নিছিলা তখন শরিফ বলে, আমি নেইনি। রাত দুটায় জামাল ফোন করে আমাকে আসতে বলে ইউনিয়ন পরিষদের পাশে। আমি এসে দেখি অচেতন অবস্থায় পড়েরে আছে। তারা পরিকল্পনা করছে তাকে মেরে ফেরবে। আমি বলি, গরিব মানুষ মারার দরকার নেই। আমি তার মাকে বুঝিয়ে দিয়ে আসব এবং কোন দেন-দরবার করতে বারণ করে আসব এই বলে পূণ্যাকে তাদের কাছ থেকে উদ্ধার করে নিয়ে আসি।

তিনি অরো বলেন, থানায় মামলা করেছি শুনে জামাল আমাকে ও আমার মেয়েকে হত্যা করে ফেলবে বললে, আমি ভয়ে মেয়েকে নিয়ে গ্রাম ছেড়েছি।

শরিফের মুঠোফোন বন্ধ থাকায় তার বক্তব্য নেয়া সম্ভব হয়নি।

অভিযুক্ত জামালের বাড়িতে গিয়ে তাকে পাওয়া যায়নি। তিনি গা-ঢাকা দিয়েছেন। তার মুঠোফোনও বন্ধ।

তবে তার বাবা কামাল্লা ইউপির সাবেক তিনবারের চেয়ারম্যান সামাদ মিয়া বলেন, বর্তমানে আমি কামাল্লা ইউনিয়ন আ’লীগের সভাপতি এবং সাবেক তিনবারের চেয়ারম্যান। শত্রুতাবশত আমার ছেলেকে এ ঘটনার সাথে জড়িয়েছে।

নাম প্রকাশ না করার শর্তে স্থানীয় অনেকেই বলেন, জামাল কামাল্লা ইউনিয়নের একজন চিহ্নিত মাদক ব্যবসায়ী।

মুরাদনগর থানার ওসি একে এম মনজুর আলম বলেন, প্রতিবন্ধী ধর্ষণের ঘটনায় থানায় মামলা হয়েছে। আসামি গ্রেপ্তারের চেষ্টা চলছে। মা-মেয়েকে সবরকমের সহযোগিতা আমরা দেব।