সন্ধ্যা ৭:০৫ বুধবার ২৫শে নভেম্বর, ২০২০ ইং

ব্রেকিং নিউজ:

কুমিল্লা দেবিদ্বারে ৫০ টাকার লোভ দেখিয়ে ৭ বছরের শিশুকে ধর্ষণ। | কুমিল্লা সদরে ডিবি পুলিশের অভিযানে অস্ত্র ও ৫ শত পিছ ইয়াবাসহ এক এক যুবক। | সিলেট চেম্বারের পরিচালনা পরিষদের ২০১৯-২০২১ সাল মেয়াদের দ্বি-বার্ষিক নির্বাচন অনুষ্ঠিত | কুমিল্লা সদর দক্ষিণে যাত্রীবাহি বাসচাপায় ৩ মোটরসাইকেল আরোহী নিহত। | মাধবপুরে দুই কেজি গাঁজা সহ ২ মাদক পাচারকারী আটক | ছেলের জন্য সকলের কাছে দোয়া চাইলেন ক্রিকেটার রুবেল | পুত্র সন্তানের বাবা হলেন রুবেল, মা-ছেলে দুজনেই সুস্থ আছেন | মাদক চোরাকারবারীদের ফাঁদে পরে, বিলিনের পথে মাধবপুরের চা শিল্প! | কুমিল্লা সদরে ট্রেনে কাটা পড়ে দুই ষ্কুল শিক্ষার্থী নিহত। আহত-৩ | কুমিল্লায় গোয়েন্দা পুলিশের অভিযানে ৫ হাজার পিছ ইয়াবাসহ সাংবাদিক শামীম আটক। |

দেড় ঘণ্টায় ঢাকা থেকে চট্টগ্রাম, সমীক্ষার চুক্তি সই

নিউজ ডেস্ক | জাগো প্রতিদিন .কম
আপডেট : May 31, 2018 , 2:11 pm
ক্যাটাগরি : জাতীয়
পোস্টটি শেয়ার করুন

ঢাকা-চট্টগ্রাম রুটে উচ্চ গতির ট্রেন চালাতে সমীক্ষা ও নকশা তৈরির জন্য চুক্তি সই হয়েছে। রেলপথ মন্ত্রী মুজিবুল হক এই লাইনে ঘণ্টায় ২০০ কিলোমিটার বেগে ট্রেন চালিয়ে দেড় ঘণ্টায় যাত্রীদেরকে রাজধানী থেকে বন্দর নগরীতে নিয়ে যেতে চান।

বৃহস্পতিবার রেলভবনে এই সমীক্ষা ও নকশা তৈরির চুক্তি সই হয়েছে। অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির ছিলেন রেলমন্ত্রী।

রেলভবনে এ চুক্তিতে বাংলাদেশের পক্ষে সই করেন প্রকল্প পরিচালক কামরুল আহসান এবং পরামর্শক প্রতিষ্ঠানের পক্ষে ইন্টারন্যাশনাল বিজনেস ডিপার্টমেন্ট বিজনেস ম্যানেজার লিও উইচাও।

চুক্তি অনুযায়ী বাংলাদেশ রেলওয়ে, চায়না রেলওয়ে ডিজাইন করপোরেশন এবং মজুমদার এন্টারপ্রাইজ (বাংলাদেশ) যৌথভাবে এ কাজ করবে।

চুক্তি অনুযায়ী ১৮ মাসের মধ্যে সম্ভাব্যতা সমীক্ষা এবং ডিটেইলড ডিজাইন কাজ শেষ হবে। চুক্তি মূল্য ১০২ কোটি ১০ লাখ ৪৭ হাজার ৭৩০ টাকা। সরকারের নিজস্ব তহবিল থেকে এই টাকা দেয়া হবে।

পরিকল্পনা অনুযায়ী ভৈরব হয়ে ব্রাহ্মণবাড়িয়া হয়ে লাকসাম দিয়ে চলার বদলে নারায়ণগঞ্জের ওপর দিয়ে নতুন একটি লাইন তৈরি হবে। এতে ৯০ কিলোমিটারের মতো দূরত্ব কমে যাবে।

বর্তমানে ঢাকা-চট্টগ্রাম রুটে সর্বনিম্ন সাড়ে চার ঘণ্টায় সোনার বাংলা এবং সুবর্ণ এক্সপ্রেস চলে। এই দুটি ট্রেন বিমানবন্দর স্টেশনের পর আর কোথাও থামে না। তবে অন্য ট্রেনগুলো কমপক্ষে সাড়ে পাঁচ ঘণ্টা লাগে।

এখন এই রুটে ট্রেনের সর্বোচ্চ গতি ৭০ কিলোমিটার। কিন্তু এটি তিনগুণের মতো বাড়াতে চান রেলমন্ত্রী। বলেন, ‘২০০ কিলোমিটার গতির ট্রেন চালানোর মাধ্যমে দেড় থেকে দুই ঘণ্টায় ঢাকা-চট্রগ্রাম আসা যাওয়া করা যাবে। এতে করে দ্রুত যাত্রী ও পণ্য পরিবহন করা সম্ভব হবে। দেশের অর্থনীতির উন্নয়নে এই ট্রেন সার্ভিস গুরুত্বপূর্ণ অবদান রাখবে।’

মুজিবুল হক বলেন, ‘ঢাকা-চট্টগ্রাম রেলপথ খুবই গুরুত্বপূর্ণ। বর্তমানে এর দৈর্ঘ্য ৩২০ কিলোমিটার। প্রস্তাবিত রুট অনুযায়ী এর দৈর্ঘ্য ৯১ কিলোমিটার কমে হবে ২৩০ কিলোমিটার।’

‘বর্তমান সরকার রেলখাতের উন্নয়নে অধিক গুরুত্ব দিয়েছে। ফলে নতুন নতুন প্রকল্প নেয়া হচ্ছে। এসময় তিনি চলমান কয়েকটি প্রকল্পের কথা উল্লেখ করেন।’

চুক্তি সই অনুষ্ঠানে রেলপথ মন্ত্রণালয়ের সচিব মোফাজ্জেল হোসেন, মহাপরিচালক আমজাদ হোসেন, পরামর্শক প্রতিষ্ঠানের প্রতিনিধি ও সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।