রাত ১১:২০ রবিবার ২৯শে নভেম্বর, ২০২০ ইং

ব্রেকিং নিউজ:

কুমিল্লা দেবিদ্বারে ৫০ টাকার লোভ দেখিয়ে ৭ বছরের শিশুকে ধর্ষণ। | কুমিল্লা সদরে ডিবি পুলিশের অভিযানে অস্ত্র ও ৫ শত পিছ ইয়াবাসহ এক এক যুবক। | সিলেট চেম্বারের পরিচালনা পরিষদের ২০১৯-২০২১ সাল মেয়াদের দ্বি-বার্ষিক নির্বাচন অনুষ্ঠিত | কুমিল্লা সদর দক্ষিণে যাত্রীবাহি বাসচাপায় ৩ মোটরসাইকেল আরোহী নিহত। | মাধবপুরে দুই কেজি গাঁজা সহ ২ মাদক পাচারকারী আটক | ছেলের জন্য সকলের কাছে দোয়া চাইলেন ক্রিকেটার রুবেল | পুত্র সন্তানের বাবা হলেন রুবেল, মা-ছেলে দুজনেই সুস্থ আছেন | মাদক চোরাকারবারীদের ফাঁদে পরে, বিলিনের পথে মাধবপুরের চা শিল্প! | কুমিল্লা সদরে ট্রেনে কাটা পড়ে দুই ষ্কুল শিক্ষার্থী নিহত। আহত-৩ | কুমিল্লায় গোয়েন্দা পুলিশের অভিযানে ৫ হাজার পিছ ইয়াবাসহ সাংবাদিক শামীম আটক। |

‘এসপি স্যারের প্রতি আমরা খুব খুশি’

নিউজ ডেস্ক | জাগো প্রতিদিন .কম
আপডেট : May 28, 2018 , 8:41 am
ক্যাটাগরি : দেশজুড়ে
পোস্টটি শেয়ার করুন

‘এসপি স্যারের কার্যক্রমে আমি ভীষণ খুশি হয়েছি। এতে পুলিশের প্রতি মানুষের আস্থা বাড়বে। স্যার নড়াইলবাসীর হৃদয়ে সত্যিকার স্থান করে নেবেন।’ কথাগুলো বলছিলেন ভুক্তভোগী এক মা। ভুক্তভোগী মা রেকসোনা পারভীনের বাড়ি নড়াইলের লোহাগড়া উপজেলার জয়পুর গ্রামে।

অভিযোগে জানা যায়, চলমান মাদকবিরোধী অভিযানে পলিটেকনিক্যাল কলেজের শিক্ষার্থী লোহাগড়া উপজেলার জয়পুর এলাকার আবু নাইমকে গত বৃহস্পতিবার (২৪ মে) সন্ধ্যায় জয়পুর মোড় থেকে আটক করে তার মা রেকসোনা পারভীনের কাছে টাকা দাবি করেন লোহাগড়া থানার দুই এএসআই সুজন ফকির ও ইসমাইল হোসেন। ভুক্তভোগী রেকসোনা পারভীন বিষয়টি নড়াইলের পুলিশ সুপার মোহাম্মদ জসিম উদ্দিনকে জানালে তিনি তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেন।

শনিবার (২৬ মে) রাত সাড়ে ১১টার দিকে এএসআই সুজন ও ইসমাইলকে দায়িত্ব থেকে অব্যাহতি দিয়ে নড়াইল পুলিশ লাইন্সে প্রত্যাহার করা হয়।

রেকসোনা পারভীন বলেন, গত বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় আমার ছেলে আবু নাইম বাড়ির পাশে এক বন্ধুর সাথে গল্প করছিল। এ সময় অভিযুক্ত দুই এএসআই আমার ছেলেসহ তার বন্ধুকে আটক করে নিয়ে যায়। ওইদিন (বৃহস্পতিবার) রাত ১০টার দিকে মোটা অংকের টাকায় নাইমের বন্ধু শাওনকে ছেড়ে দেয় পুলিশ। এদিকে আমার কাছে চার হাজার টাকা দাবি করে তারা। পরবর্তীতে সেই টাকা দিলেও নাইমকে ছাড়েনি ওই পুলিশ কর্মকর্তারা।

পরে এএসআই সুজন ফকির আমাকে বলেন, চার হাজার টাকা দেয়ায় আমার ছেলের বিরুদ্ধে ১০টি ইয়াবার মামলা হয়েছে। আর টাকা না দিলে ৫২টি ইয়াবার মামলা হতো। বিষয়টি নড়াইলের পুলিশ সুপারকে জানালে তিনি তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেন। নাইম জয়পুর এলাকার আবু সাইদ বাবুলের ছেলে।

এ ব্যাপারে বিভিন্ন পেশার মানুষ বলেন, আমাদের দেশে এমন পুলিশ কর্মকর্তারই (মোহাম্মদ জসিম উদ্দিন) প্রয়োজন। তাহলে সাধারণ মানুষ পুলিশের হয়রানি থেকে যেমন মুক্তি পাবেন, তেমনি পুলিশ বিভাগের ভাবমর্যাদা বৃদ্ধি পাবে।