দুপুর ২:৪৩ মঙ্গলবার ২৪শে নভেম্বর, ২০২০ ইং

ব্রেকিং নিউজ:

কুমিল্লা দেবিদ্বারে ৫০ টাকার লোভ দেখিয়ে ৭ বছরের শিশুকে ধর্ষণ। | কুমিল্লা সদরে ডিবি পুলিশের অভিযানে অস্ত্র ও ৫ শত পিছ ইয়াবাসহ এক এক যুবক। | সিলেট চেম্বারের পরিচালনা পরিষদের ২০১৯-২০২১ সাল মেয়াদের দ্বি-বার্ষিক নির্বাচন অনুষ্ঠিত | কুমিল্লা সদর দক্ষিণে যাত্রীবাহি বাসচাপায় ৩ মোটরসাইকেল আরোহী নিহত। | মাধবপুরে দুই কেজি গাঁজা সহ ২ মাদক পাচারকারী আটক | ছেলের জন্য সকলের কাছে দোয়া চাইলেন ক্রিকেটার রুবেল | পুত্র সন্তানের বাবা হলেন রুবেল, মা-ছেলে দুজনেই সুস্থ আছেন | মাদক চোরাকারবারীদের ফাঁদে পরে, বিলিনের পথে মাধবপুরের চা শিল্প! | কুমিল্লা সদরে ট্রেনে কাটা পড়ে দুই ষ্কুল শিক্ষার্থী নিহত। আহত-৩ | কুমিল্লায় গোয়েন্দা পুলিশের অভিযানে ৫ হাজার পিছ ইয়াবাসহ সাংবাদিক শামীম আটক। |

মাদকবিরোধী অভিযান: হাজারিবাগেও আটক শতাধিক

নিউজ ডেস্ক | জাগো প্রতিদিন .কম
আপডেট : May 27, 2018 , 9:40 am
ক্যাটাগরি : জাতীয়
পোস্টটি শেয়ার করুন

রাজধানীতে মাদকের আস্তান হিসেবে পরিচিত মোহাম্মদপুরের জেনেভা ক্যাম্পের পর এবার হাজারীবাগেও সুইপার কলোনিতে অভিযান চালাল আইনশৃঙ্খলা বাহিনী। আগের দিনের মতোই সেখান থেকেও আটক হয়েছে শতাধিক।

আটকদের মধ্যে মাদক বিক্রেতা ছাড়াও আছে বেশ কয়েকজনকে মাদকসেবীও। তবে আটক সবাই মাদক সংশ্লিষ্ট নয় জানিয়ে যাচাই বাছাই শেষে নির্দোষদের ছেড়ে দেয়া হবে বলে জানান অভিযানের নেতৃত্ব দেয়া ঢাকা মহানগর পুলিশের রমনা অঞ্চলের উপকমিশনার মারুফ হোসেন সরদার।

রবিবার সকালে হাজারীবাগ এলাকার সুইপার কলোনি নামে পরিচিত পাটুয়াতলী কলোনিতে এ অভিযান চালায় পুলিশ।

অভিযানে অংশ নেয় ছয় থেকে সাতশ জন সদস্য। ঢাকা মহানগর পুলিশ ছাড়াও ছিল বিশেষায়িত বাহিনী সোয়াট, গোয়েন্দা পুলিশ। ছিল পুলিশের কে নাইন ডগ স্কোয়াডও।

সকাল সাড়ে দশটা থেকে শুরু হয় অভিযান। প্রথমে কলোনির ১১টি ভবন ঘিরে ফেলে আইনশৃঙ্খলা বাহিনী। এরপর পালাক্রমে প্রতিটি ভবনে তল্লাশি চালানো হয়।

অভিযানে উদ্ধার করা হয় বিপুল পরিমাণ মাদকদ্রব্য। যার মধ্যে রয়েছে ইয়াবা ও বাংলা মদ। একাধিক বাংলা মদের চোরাই কারখানাও পাওয়া যায় সেখানে।

এসব কারখানা ও ইয়াবাসহ বিক্রেতাদের আটক করা গেলেও সবচেয়ে বড় মদের কারখানার মালিক সুমনকে আটক করা সম্ভব হয়নি বলে জানিয়েছে পুলিশ।

আটকদের মধ্যে আছে নয় জন নারীও। তারা মাদক বিক্রেতা বলে দাবি করছে পুলিশ।

অভিযান সম্পর্কে পুলিশ কর্মকর্তা মারুফ হোসেন সরদার সাংবাদিকদের বলেন, বর্তমানে দেশজুড়ে পুলিশের মাদকবিরোধী অভিযান চলছে। তারই ধারাবাহিকতায় এই অভিযান চালানো হয়েছে।

‘অনেক মাদক ব্যবসায়ী আটক হয়েছে। অনেকে মাদক সেবন করতে এসেছে। তারাও আটক হয়েছে, আমরা ব্যাপক পরিমাণ মাদক উদ্ধার করেছি। যদি কেউ নিরীহ থাকে। তাহলে যাচাই বাচাই করে তাদের ছেড়ে দেয়া হবে।’

অভিযান চলাকালে কেউ যেন পালাতে না পারে সেজন্য আগে থেকেই পুরো কলোনি ঘিরে রাখা হয় বলেও জানান এই পুলিশ কর্মকর্তা। বলেন, ‘এ ধরনের অভিযান আরও চলবে।’

স্থানীয় বাসিন্দা জুম্মন ঢাকাটাইমসকে এই অভিযানের বিষয়ে বলেন, ‘ইয়াবার মেইন ডিলাররা কেউ গ্রেপ্তার হয়নি। আমি দাঁড়িয়ে দেখলাম। যাদের নিয়ে যাওয়া হচ্ছে এরা ইয়াবা খায়। বিক্রেতা আছে কয়েকজন।’

জুম্মন বলেন, ‘ডিলাররা দুই-তিন মাস আগেই এরা এলাকা ছেড়ে অন্যদিকে চলে গেছে। কয়েকটা পরিবার আছে, যারা মদ বিক্রি করে। এদের অনেকে গ্রেপ্তার হয়েছে।’

গত ৪ মে থেকে সারাদেশে মাদকবিরোধী সাঁড়াশি অভিযান শুরু করেছে র‌্যাব ও পুলিশ। অভিযানে বিভিন্ন এলাকায় সরকারি বাহিনীর সঙ্গে কথিত বন্দুকযুদ্ধে নিহত হয়েছে ৯০ জনেরও বেশি।

রাজধানীতে আগের দিন মোহাম্মদপুরের জেনেভা ক্যাম্পে হাজারীবাগের মতো বড়সড় অভিযান চালায় র‌্যাব। সেখানে প্রথমে পাঁচশ জনকে আটক করা হলেও শেষ অবধি যাচাই বাছাই শেষে ১৫৩ জনকে রেখে বাকিদেরকে ছেড়ে দেয়া হয়।