রাত ১০:২৩ শুক্রবার ২৭শে নভেম্বর, ২০২০ ইং

ব্রেকিং নিউজ:

কুমিল্লা দেবিদ্বারে ৫০ টাকার লোভ দেখিয়ে ৭ বছরের শিশুকে ধর্ষণ। | কুমিল্লা সদরে ডিবি পুলিশের অভিযানে অস্ত্র ও ৫ শত পিছ ইয়াবাসহ এক এক যুবক। | সিলেট চেম্বারের পরিচালনা পরিষদের ২০১৯-২০২১ সাল মেয়াদের দ্বি-বার্ষিক নির্বাচন অনুষ্ঠিত | কুমিল্লা সদর দক্ষিণে যাত্রীবাহি বাসচাপায় ৩ মোটরসাইকেল আরোহী নিহত। | মাধবপুরে দুই কেজি গাঁজা সহ ২ মাদক পাচারকারী আটক | ছেলের জন্য সকলের কাছে দোয়া চাইলেন ক্রিকেটার রুবেল | পুত্র সন্তানের বাবা হলেন রুবেল, মা-ছেলে দুজনেই সুস্থ আছেন | মাদক চোরাকারবারীদের ফাঁদে পরে, বিলিনের পথে মাধবপুরের চা শিল্প! | কুমিল্লা সদরে ট্রেনে কাটা পড়ে দুই ষ্কুল শিক্ষার্থী নিহত। আহত-৩ | কুমিল্লায় গোয়েন্দা পুলিশের অভিযানে ৫ হাজার পিছ ইয়াবাসহ সাংবাদিক শামীম আটক। |

জেনেভা ক্যাম্প থেকে আটক ৭৭ জনকে সাজা, নিয়মিত মামলায় ৭৬ জন

নিউজ ডেস্ক | জাগো প্রতিদিন .কম
আপডেট : May 26, 2018 , 4:49 pm
ক্যাটাগরি : অপরাধ ও দুর্নীতি
পোস্টটি শেয়ার করুন

রাজধানীর মোহাম্মদপুরের জেনেভা ক্যাম্প থেকে মাদকবিরোধী বিশেষ অভিযানে আটক ৩শ’ জনের বিরুদ্ধে অভিযোগ প্রমাণিত না হওয়ায় তাদের ছেড়ে দিয়েছে র‌্যাব। বাকি ১৫৩ জনের মধ্যে ৭৭ জনকে বিভিন্ন মেয়াদে সাজা দিয়েছে র‌্যাব-২ এর ভ্রাম্যমাণ আদালত এবং ৭৬ জনের নামে নিয়মিত মামলা দায়ের করা হয়েছে।

শনিবার (২৬ মে) তিনজন ম্যাজিস্ট্রেট ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনা করেন। এদিন দুপুরে প্রায় তিন ঘণ্টাব্যাপী অভিযান শেষে র‌্যাবের গণমাধ্যম শাখার পরিচালক মুফতি মাহমুদ খান সাংবাদিকদের বলেন, এখানে মাদকবিরোধী অভিযান সফলভাকে সম্পন্ন হয়েছে। অভিযানে প্রায় ১৫ হাজার পিস ইয়াবা এবং ১০০ কেজি গাঁজা জব্দ করা হয়।

এদিকে অভিযানে পর জেনেভা ক্যাম্পবাসীরা সাংবাদিকদের বলেন, র‌্যাবের অভিযানে তথ্য দুই-তিনদিন আগেই জানা গিয়েছিল। মাদকের মূলহোতারা আগেই পালিয়েছে। ক্যাম্পের সবাই তাদের চেনে, কিন্তু প্রাণ ভয়ে কেউ মুখ খুলবে না। আজ যাদের আটক করা হলো, তাদের অধিকাংশই নির্দোষ। জড়িত যারা আটক হলো, তারা পুঁটি মাছ- বোয়ালরা নাগালের বাইরে।

অভিযান শেষ হওয়ার পর আটক ব্যক্তিদের স্বজনরা র‌্যাব-২ এর কার্যালয়ের সামনে অপেক্ষা করতে শুরু করে। স্বজনদের ফেরৎ পাওয়া নিয়ে শঙ্কায় অনেককে আহাজারিও করতে দেখা যায়।

র‌্যাব-২ এর সিও এবং কমান্ডিং অফিসার আনোয়ারুজ্জামান সারাবাংলাকে বলেন, আমরা প্রায় সাড়ে তিনশ’ জনকে আটক করেছিলাম। এর মধ্যে নারীও ছিল। যাচাই-বাছাই পর্বে যাদের নির্দোষ পাওয়া গেছে, তাদের আমরা ছেড়ে দিয়েছি। এটা একটা প্রক্রিয়া। যাদের বিরুদ্ধে অভিযোগের সত্যতা পাওয়া গেছে, তাদের ভ্রাম্যমাণ আদালত বিভিন্ন মেয়াদে সাজা দিয়েছেন। কারও কারও নামে নিয়মিত মামলা দায়ের করা হবে। ভ্রাম্যমাণ আদালতে সাজা পাওয়া অনেকের নামেও নিয়মিত মামলা দায়ের করা হবে।