ভোর ৫:৩৪ মঙ্গলবার ২১শে অক্টোবর, ২০১৯ ইং

ব্রেকিং নিউজ:

কুমিল্লা দেবিদ্বারে ৫০ টাকার লোভ দেখিয়ে ৭ বছরের শিশুকে ধর্ষণ। | কুমিল্লা সদরে ডিবি পুলিশের অভিযানে অস্ত্র ও ৫ শত পিছ ইয়াবাসহ এক এক যুবক। | সিলেট চেম্বারের পরিচালনা পরিষদের ২০১৯-২০২১ সাল মেয়াদের দ্বি-বার্ষিক নির্বাচন অনুষ্ঠিত | কুমিল্লা সদর দক্ষিণে যাত্রীবাহি বাসচাপায় ৩ মোটরসাইকেল আরোহী নিহত। | মাধবপুরে দুই কেজি গাঁজা সহ ২ মাদক পাচারকারী আটক | ছেলের জন্য সকলের কাছে দোয়া চাইলেন ক্রিকেটার রুবেল | পুত্র সন্তানের বাবা হলেন রুবেল, মা-ছেলে দুজনেই সুস্থ আছেন | মাদক চোরাকারবারীদের ফাঁদে পরে, বিলিনের পথে মাধবপুরের চা শিল্প! | কুমিল্লা সদরে ট্রেনে কাটা পড়ে দুই ষ্কুল শিক্ষার্থী নিহত। আহত-৩ | কুমিল্লায় গোয়েন্দা পুলিশের অভিযানে ৫ হাজার পিছ ইয়াবাসহ সাংবাদিক শামীম আটক। |

তালা ইউএনও-কে প্রত্যাহার দাবি

নিউজ ডেস্ক | জাগো প্রতিদিন .কম
আপডেট : মে ২৬, ২০১৮ , ৪:৩৩ অপরাহ্ণ
ক্যাটাগরি : খুলনা,দেশজুড়ে
পোস্টটি শেয়ার করুন

তালা উপজেলা নির্বাহী অফিসার (ইউএনও) ফরিদ হোসেনকে প্রত্যাহারের দাবি জানিয়েছেন স্থানীয় সংসদ সদস্য, উপজেলা চেয়ারম্যানসহ ১২টি ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যানরা।

শনিবার দুপুরে সাতক্ষীরা প্রেসক্লাবে এক সংবাদ সম্মেলনে এই দাবি জানানো হয়।

এ সময় তালা কলারোয়া আসনের সংসদ সদস্য এডভোকেট মুস্তফা লুৎফুল্লাহ উপস্থিত থেকে তাদের সাথে একাত্মতা ঘোষণা করেন।

সংবাদ সম্মেলনে তিনি বিভিন্ন প্রশ্নের জবাবও দেন।
সংবাদ সম্মেলনে তালা উপজেলা চেয়ারম্যান ঘোষ সনৎ কুমার, দুইজন উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান এবং ১২টি ইউনিয়নের চেয়ারম্যানরা উপস্থিত ছিলেন।

সংবাদ সম্মেলনে ইউএনও’র বিরুদ্ধে ঘুষ দুর্নীতি স্বেচ্ছাচারিতা অসদাচরণ ও নানা অনিয়মের অভিযোগ আনা হয়।

সংবাদ সম্মেলনে জানানো হয়, ইউএনও’র স্বেচ্ছাচারের প্রতিবাদে ৩ জুন পর্যন্ত উপজেলা পরিষদের যাবতীয় কাজ থেকে বিরত থাকা, ৪ জুন সমাবেশের মাধ্যমে বৃহত্তর কর্মসূচি দেওয়া হবে।

সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্যে উপজেলা চেয়ারম্যান ঘোষ সনৎ কুমার বলেন, ২০১৬ সালের ৯ মে যোগদানের পর থেকে নির্বাহী অফিসার ফরিদ হোসেন ঘুষ গ্রহণ ও নানা ধরনের দুর্নীতি ও অনিয়ম করছেন।

লিখিত বক্তব্যে বলা হয়, গত ২৪ জুন মাসিক সমন্বয় কমিটির সভায় ইউএনও কয়েকজন চেয়ারম্যানকে শারীরিকভাবে আঘাত করতে উদ্যত হন। এমন কি তাদেরকে আটকে রেখে পুলিশ দেয়ারও হুমকি দেন।

সংবাদ সম্মেলনে তালা উপজেলার ১২টি ইউনয়নের চেয়ারম্যানরা ছাড়াও দুই ভাইস চেয়ারম্যান মো. ইকতিয়ার হোসেন ও জেবুন্নেসা খানম এবং সংরক্ষিত মহিলা আসনের চার সদস্য ও উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডার উপস্থিত ছিলেন।

তার বিরুদ্ধে আনীত অভিযোগ সম্পর্কে জানতে চাইলে নির্বাহী অফিসার ফরিদ হোসেন বলেন, প্রতি বছর জুন মাস আসতেই পরিষদের কয়েকজন সদস্য কিছু অনিয়মতান্ত্রিক কাজ আদায়ের জন্য এ ধরনের প্রচারণা চালিয়ে থাকেন। এবারও তারা একইভাবে তাদের তদ্বির বাস্তবায়নের লক্ষ্যে এসব কথা বলছেন। তিনি কোনো ধরনের ঘুষ দুর্নীতির সাথে জড়িত নন বলে দাবি করেন।