সকাল ৮:৩২ সোমবার ২৬শে আগস্ট, ২০১৯ ইং

ব্রেকিং নিউজ:

কুমিল্লা সদরে ট্রেনে কাটা পড়ে দুই ষ্কুল শিক্ষার্থী নিহত। আহত-৩ | কুমিল্লায় গোয়েন্দা পুলিশের অভিযানে ৫ হাজার পিছ ইয়াবাসহ সাংবাদিক শামীম আটক। | কুমিল্লা লালমাইয়ে যাত্রীবাহী বাসের চাপায় সিএনজি অটোরিকশার ৫ যাত্রী নিহত।আহত-৩ | সিলেটের প্রতীক কিনব্রিজ রক্ষায় উদ্যোগ গ্রহন | কুমিল্লা সদরে র‍্যাব-১১ অভিযানে ৫ হাজার ৬ শত পিছ ইয়াবাসহ মাদক ব্যবসায়ী আটক | কুমিল্লা চৌদ্দগ্রামের চিওড়ায় গরু বোঝাই ট্রাক উল্টে তিন গরু ব্যবসায়ী নিহত। | জিজ্ঞাসাবাদের পর মিন্নি গ্রেফতার | বিশ্বকাপের মঞ্চে ইংল্যান্ড-নিউজিল্যান্ড, ইংলিশদের হাতে উঠবে কি কাপ..? | বিপদসীমার উপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে সুরমার পানি | মিরপুর বেরিবাধে চোর আটক, স্থানীয় সাংসদের আত্মীয় পরিচয়ে বাচার চেষ্টা |

গাছ তিনটি দাঁড়িয়ে, তবুও ‘কর্তন’ মামলার আসামি বাবা-ছেলে!

নিউজ ডেস্ক | জাগো প্রতিদিন .কম
আপডেট : মে ২৬, ২০১৮ , ৪:০৮ অপরাহ্ণ
ক্যাটাগরি : খুলনা,দেশজুড়ে
পোস্টটি শেয়ার করুন

রাস্তার পাশে সারি সারি তিনটি গাছ দাঁড়িয়ে আছে। অথচ এই গাছ কর্তন ও লগ চুরির অভিযোগে বাবা-ছেলেকে আসামি করে মামলা করা হয়েছে। জীবিত গাছ কাটা ও লগ চুরির ঘটনায় মামলা করায় তোলপাড়ের সৃষ্টি হয়েছে।

যশোর জেলা পরিষদের সার্ভেয়ার ও বৃক্ষ সংরক্ষণের দায়িত্বে নিয়োজিত কর্মচারী আশরাফ হোসেন বাদী হয়ে গত ৯ মে ঝিকরগাছা থানায় মামলা দায়ের করেন।

মামলার আসামিরা হলেন- ঝিকরগাছা উপজেলার মিশ্রীদেয়াড়া গ্রামের সন্তোষ আলীর ছেলে আমজাদ হোসেন (৪৮) ও তার ছেলে আসাদ হোসেন (২০)।

মামলার বিবরণীতে উল্লেখ করা হয়েছে, যশোরের ঝিকরগাছর চৌগাছা-ত্রিমোহিনী সড়কের মিশ্রিদেয়াড়া বাজারে রাস্তার পাশে তিনটি রেইন্ট্রি গাছ যশোর জেলা পরিষদের মালিকানাধীন সীমানায় সরকারিভাবে রোপণকৃত। আসামিরা মূল্যবান গাছগুলি কর্তন করেছে। আসামিদের বিষয়ে খোঁজ-খবর ও চুরিকৃত গাছের লগ উদ্ধারের জন্য এজাহার দাখিলে কিছুটা বিলম্ব হয়েছে।

এদিকে গাছ চুরির অভিযোগে ঝিকরগাছা থানায় মামলা দায়ের করলেও বাস্তবে গাছগুলো এখনও জীবিত ও দাঁড়িয়ে আছে। দণ্ডয়মান গাছ কেটে নেওয়ার অভিযোগ সঠিক নয় বলে দাবি করেছেন মামলার আসামি আমজাদ হোসেন।

স্থানীয় সাংবাদিকরা সরেজমিনে গিয়ে দেখেছেন, তিনটি তরতাজা রেইন্ট্রিগাছ দণ্ডায়মান আছে। তবে গাছ তিনটির গোরায় ধারালো অস্ত্র দিয়ে কোপানোর চিহ্ন লক্ষ্য করা গেছে।

অভিযুক্ত আমজাদ হোসেন দাবি করেন, গাছ তিনটিসহ ক্রয়সুত্রে তিনি ওই সম্পত্তির বৈধ মালিক। তার জমির ভেতরে অবস্থিত গাছগুলো। তারপরও গাছগুলিতে তার কোনো দাবি নেই। তবে ২০১৭ সালের ১১ অক্টোবর গাছগুলো অপসারণে যশোর জেলা প্রশাসক বরাবর লিখিত আবেদন করেন তিনি।

গাছগুলো ধারালো অস্ত্র দিয়ে কুপিয়ে কে বা কারা এবং তাকে মিথ্যা হয়রানিমূলক মামলায় ফাঁসানোর চেষ্টা করেছেন দাবি করেন তিনি।

জানতে চাইলে সার্ভেয়ার আশরাফ হোসেন বলেন, গাছ চুরি নয়, চুরি প্রচেষ্টার মামলা করা হয়েছে। আসামিরা মামলার বিষয়ে মিথ্যাচার করছে। গাছ তিনটি ৬০ শতাংশ কাটা হয়েছে।