সন্ধ্যা ৭:৩৫ বুধবার ২৩শে অক্টোবর, ২০১৯ ইং

ব্রেকিং নিউজ:

কুমিল্লা দেবিদ্বারে ৫০ টাকার লোভ দেখিয়ে ৭ বছরের শিশুকে ধর্ষণ। | কুমিল্লা সদরে ডিবি পুলিশের অভিযানে অস্ত্র ও ৫ শত পিছ ইয়াবাসহ এক এক যুবক। | সিলেট চেম্বারের পরিচালনা পরিষদের ২০১৯-২০২১ সাল মেয়াদের দ্বি-বার্ষিক নির্বাচন অনুষ্ঠিত | কুমিল্লা সদর দক্ষিণে যাত্রীবাহি বাসচাপায় ৩ মোটরসাইকেল আরোহী নিহত। | মাধবপুরে দুই কেজি গাঁজা সহ ২ মাদক পাচারকারী আটক | ছেলের জন্য সকলের কাছে দোয়া চাইলেন ক্রিকেটার রুবেল | পুত্র সন্তানের বাবা হলেন রুবেল, মা-ছেলে দুজনেই সুস্থ আছেন | মাদক চোরাকারবারীদের ফাঁদে পরে, বিলিনের পথে মাধবপুরের চা শিল্প! | কুমিল্লা সদরে ট্রেনে কাটা পড়ে দুই ষ্কুল শিক্ষার্থী নিহত। আহত-৩ | কুমিল্লায় গোয়েন্দা পুলিশের অভিযানে ৫ হাজার পিছ ইয়াবাসহ সাংবাদিক শামীম আটক। |

গলাচিপায় পরকীয়ার টানে স্ত্রীকে জবাই করে হত্যা!

নিউজ ডেস্ক | জাগো প্রতিদিন .কম
আপডেট : জুন ১১, ২০১৯ , ৫:০৭ পূর্বাহ্ণ
ক্যাটাগরি : অপরাধ ও দুর্নীতি
পোস্টটি শেয়ার করুন

পটুয়াখালীর গলাচিপায় স্বামী তার স্ত্রীকে নির্মম ভাবে জবাই করে ও কুপিয়ে হত্যা করেছে। ঘটনার ৬ ঘন্টার মধ্যে পুলিশ ঘটনাস্থল থেকে খুনের অভিযোগে স্বামী মোঃ শিরু খাঁকে গ্রেফতার করেছে। পুলিশ জানিয়েছে, মূলত প্রতিপক্ষকে ফাঁসাতে এবং পরকীয়া প্রেমের ঘটনা ধামাচাপা দিতে ঘাতক স্বামী এ ঘটনা ঘটিয়েছে। উপজেলার চরকাজল ইউনিয়নের চরশিবা গ্রামে রবিবার ভোর রাতে এ ঘটনা ঘটেছে।

পুলিশ ও এলাকাবাসী সূত্রে জানা গেছে, ঘটনার সময়ে তর্ক-বিতর্কের জের ধরে স্বামী শিরু খাঁ (৫৫) ধারালো বাংলা দা’ দিয়ে প্রথমে স্ত্রী পারভিন বেগমকে (৪৫) জবাই করে হত্যার চেষ্টা করে। এ সময় স্বামী-স্ত্রীর মধ্যে ধ্বস্তাধ্বস্তি হয়। এক পর্যায়ে পারভিন বেগম দৌড়ে পালানোর চেষ্টা করে। তখন তাকে এলোপাথারি কুপিয়ে মৃত্যু নিশ্চিত করা হয়। নিহত পারভিন বেগম তিন ছেলে ও এক মেয়ের মা।

চরশিবা গ্রামে বাংলাবাজারের একটি ঘরে শিরু খাঁ পরিবার নিয়ে বাস করতো। প্রতিবেশিদের সঙ্গে শিরু খাঁর দীর্ঘদিন ধরে নানা বিষয়ে বিরোধ চলে আসছিল।

গলাচিপা থানার অফিসার ইনচার্জ আখতার মোর্শেদ জানান, শিরু খাঁ এলাকায় ডাকাত হিসেবে পরিচিত। একটি ডাকাতি মামলায় সে এর আগে সাত বছর সাজাও খেটেছে। ঢাকায় সে কিছুদিন নিরাপত্তা রক্ষীর কাজ করেছে। পার্শ্ববর্তী গ্রামের এক মহিলার সঙ্গে শিরু খাঁ পরকীয়া প্রেমে জড়িয়ে পড়ে। এনিয়ে স্বামী-স্ত্রীর মধ্যে প্রতিনিয়ত কলহ হতো। এরই জের ধরে এবং প্রতিপক্ষকে ফাঁসাতে শিরু খাঁ তার স্ত্রীকে খুন করে।

খুনের পর পরই শিরু খাঁ ডাকচিৎকার দিয়ে এলাকাবাসীকে জড়ো করে তার বাড়িতে ডাকাতি ও খুনের ঘটনা ঘটেছে বলে প্রচার করে।

অফিসার ইনচার্জ আরও জানান, খবর পেয়েই তারা ঘটনাস্থলে পৌছেন। পরিবারের সদস্যদের জিজ্ঞাসাবাদের এক পর্যায়ে নিহতের ১৪ বছরের ছেলে নূর আলম তার সাক্ষ্যে মাকে বাবা খুন করেছে এবং ঘটনা প্রত্যক্ষ করেছে বলে জানায়। এর ভিত্তিতে তাৎক্ষণিক শিরু খাঁকে গ্রেফতার করা হয়। পরে পুলিশের জিজ্ঞাসাবাদে শিরু খাঁ নিজেই ঘটনার সত্যতা স্বীকার করেছে।

পুলিশ নিহতের লাশ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তে পাঠিয়েছে। এ ঘটনায় থানায় শিরু খাঁকে একমাত্র আসামি করে মামলা দায়ের করা হয়েছে।