সকাল ৭:২২ বৃহস্পতিবার ১৮ই জুলাই, ২০১৯ ইং

বিয়ের প্রলোভন দেখিয়ে মাদ্রাসার ছাত্রীকে ধর্ষন, আটক যুবক!

নিউজ ডেস্ক | জাগো প্রতিদিন .কম
আপডেট : এপ্রিল ২১, ২০১৯ , ১১:২৪ পূর্বাহ্ণ
ক্যাটাগরি : গনমাধ্যম
পোস্টটি শেয়ার করুন

শাকিল নামের এক যুবককে আটক করেছে শিবপুর মডেল থানা পুলিশ। শনিবার (২০ এপ্রিল) রাতে শিবপুর উপজেলার যোশর থেকে তাকে আটক করা হয়। আটক মো: শাকিল (২১) শিবপুর উপজেলার যোশর ইউনিয়নের যোশর গাবতলী গ্রামের আসাদ উল্লাহর ছেলে।

মামলার বিবরণে জানা গেছে, সিলেট জেলার পাঁছপাড়া মোহাম্মদিয়া ইলামিয়া হাফিজি দাখিল মাদ্রাসার দশম শ্রেণির ওই ছাত্রীর সঙ্গে আট মাস পূর্বে একটি অনুষ্ঠানে শাকিলের পরিচয় হয়। পরিচয়ের সুবাদে মোবাইলে কথা বলে একসময় প্রেমে জড়িয়ে পড়ে তারা। শাকিল তাকে বিয়ে করার কথা বললে গত বছরের ২৫ অক্টোবর বাড়ি থেকে শাকিলের কাছে পালিয়ে আসে ওই ছাত্রী। পরে শাকিল ছাত্রীটিকে শিবপুরের গিলাবের গ্রামে তার ফুফুর বাড়ী নিয়ে যায়। সেখানে দুই দিন অবস্থানের পর ২৭ অক্টোবর নরসিংদীতে নিয়ে গিয়ে নোটারী পাবলিকের মাধ্যমে তাদের বিয়ে বন্ধন হয়েছে বলে জানিয়ে তাঁরা স্বামী স্ত্রী হিসেবে ঘর সংসার শুরু করে।

গত ১৫ এপিল রাতে শাকিলের বাড়িতে ওই ছাত্রী বিয়ের মূল কাবিননামার কাগজ পত্র দেখতে চাইলে ঝগড়ার সৃষ্টি হয়। পরে ২০ এপ্রিল কাবিননামার কাগজপত্র বিজ্ঞ আদালতে গিয়ে দেখানো হবে বলে জানিয়ে নরসিংদীতে আসে তারা। আদালত প্রাঙ্গনে আসার পর তাকে ফেলে পালিয়ে যায় শাকিল। শাকিলের আসতে দেরি হওয়ায় তার ব্যবহৃত মোবাইল ফোনে যোগাযোগ করলে শাকিল তাকে জানিয়ে দেয় যে, তার সাথে আর ঘর সংসার করবে না। এ ঘটনার পর ২০ এপ্রিল স্থানীয় লোকজনের সহযোগিতায় শিবপুর মডেল থানায় ধর্ষণের অভিযোগ এনে মামলা দায়ের করেন ছাত্রীটি।

শিবপুর মডেল থানার অফিসার ইনচার্জ মোল্লা আজিজুর রহমান বলেন, শাকিল নামের ওই যুবকের সাথে ওই মেয়ের প্রেমের সম্পর্ক ছিল। শাকিল তাকে বিয়ে করার কথা বললে ঐ মেয়ে বাড়ী থেকে পালিয়ে আসে। বিয়ের কাবিননামা না করে স্বামী স্ত্রীর পরিচয়ে বিভিন্ন স্থানে একাধিবার ধর্ষণ করার দায়ে ওই মেয়ে থানায় অভিযোগ দিলে রাতেই ওই যুবককে আটক করা হয়। রবিবার সকালে শাকিলকে বিজ্ঞ আদালতে পাঠানো হয়েছে।