সকাল ১০:৫৭ রবিবার ২৬শে মে, ২০১৯ ইং

ভেনিসে কুমিল্লা সমিতির কমিটি ঘোষণা

নিউজ ডেস্ক | জাগো প্রতিদিন .কম
আপডেট : মার্চ ১৫, ২০১৯ , ৮:৪৪ পূর্বাহ্ণ
ক্যাটাগরি : জাতীয়
পোস্টটি শেয়ার করুন

ঐক্য সৌহার্দ্য শান্তি প্রগতি এই স্লোগান সামনে রেখে দেশের অন্যতম তিন জেলা কুমিল্লা, চাঁদপুর ও ব্রাহ্মণবাড়িয়ার প্রবাসী বাংলাদেশিদের নিয়ে পর্যটন নগরী ভেনিসে কুমিল্লা সমিতির আহ্বায়ক কমিটি নাম ঘোষণা করা হয়েছে।

রোববার উৎসাহ উদ্দীপনার মধ্য দিয়ে ভেনিস প্রবাসী বৃহত্তর কুমিল্লা, ব্রাহ্মণবাড়িয়া ও চাঁদপুর জেলাবাসীর উপস্থিতিতে মেস্ত্রের স্থানীয় একটি রেঁস্টুরেন্টে বৃহত্তর কুমিল্লা সমিতির প্রথম সাধারণ সভার মাধ্যমে আহ্বায়ক ও উপদেষ্টা কমিটি ঘোষণা করা হয়।

সভায় সাবজেক্ট কমিটির অন্যতম সদস্য বিশিষ্ট কমিউনিটি ব্যক্তিত্ব আইনজ্ঞ রেহান উদ্দিন দুলালের সভাপতিত্বে ও মাহবুব হোসেন এবং আবদুল মান্নানের যৌথ পরিচালনায় সর্বসম্মতিক্রমে বৃহত্তর কুমিল্লা সমিতি ভেনিসের ৩৭ সদস্য বিশিষ্ট আহ্বায়ক কমিটির মধ্যে আহ্বায়ক শাহাদাত হোসেন (চাঁদপুর) ও যুগ্ম-আহ্বায়ক যথাক্রমে মিলন মোহাম্মদ (ব্রাহ্মণবাড়িয়া) ও শরীফুল আলম মৃধাকে (কুমিল্লা) মনোনীত করা হয়।

সভায় সদস্য সচিব হিসেবে মেসবাহ উদ্দিন আলাল (ব্রাহ্মণবাড়িয়া), সদস্য সচিব যথাক্রমে মাসুদুর রহমান (কুমিল্লা),আজাদ খান (চাঁদপুর), কোষাধ্যক্ষ হিসাবে মাকসুদুর রহমান (কুমিল্লা), সহ-কোষাধ্যক্ষ মোহাম্মদ ইয়াসিন (ব্রাহ্মণবাড়িয়া), মোহাম্মদ জসীমকে (চাঁদপুর) দায়িত্ব দেয়া হয়। অন্যদের মধ্যে উপদেষ্টা হলেন যথাক্রমে রেহান উদ্দিন দুলাল, মাহাবুবুর রহমান, এ টি এম কামরুজ্জামান, সাইদ হোসাইন, আবদুল কুদ্দুছ চৌধুরী, ছিদ্দিকুর রহমান বকুল, রফিকুল ইসলাম, আবদুল মান্নান ও হুমায়ূন কবির।

আহ্বায়ক কমিটির সদস্যরা হলেন যথাক্রমে চাঁদপুর জেলা আশরাফ পাটোয়ারী, শাহিন পাটোয়ারী, কবির হোসেন, জাহিদুল ইসলাম, মোশাররফ হোসেন, সোহেল রানা, প্রফেসর মুন্না ও হারুন খাঁন। ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলার মো. শাহআলম, শেখ আমানউল্লাহ, মো. হাবিব মিয়া, জিল্লাল মিয়া, ফয়সাল আহম্মেদ, ফখরুল ইসলাম দুলাল, রফিকুল ইসলাম ও মো. জামাল।

কুমিল্লা জেলার নজরুল ইসলাম, নিমাল চৌধুরী, আবুল কালাম আজাদ, রহিম জাবেদ মামুন, তুহিন রহমান, নাছির উদ্দিন, মামুনুর রশিদ, জামাল উদ্দিন, নুর আলম ভূইয়া, খালেদ রহমান, হাবিবুর রহমান ও আজিজুল রহমান। সভায় আহ্বায়ক কমিটি আগামী ১২০ দিনের মধ্যে একটি সম্মেলনের মাধ্যমে পূর্ণাঙ্গ কমিটি উপহার দেয়ার দৃঢ় প্রত্যয় ব্যক্ত করেন। পরে এক প্রীতিভোজের মাধ্যমে অনুষ্ঠানের সমাপ্তি ঘোষণা করা হয়।