রাত ৩:০৮ বুধবার ২৪শে নভেম্বর, ২০২০ ইং

ব্রেকিং নিউজ:

কুমিল্লা দেবিদ্বারে ৫০ টাকার লোভ দেখিয়ে ৭ বছরের শিশুকে ধর্ষণ। | কুমিল্লা সদরে ডিবি পুলিশের অভিযানে অস্ত্র ও ৫ শত পিছ ইয়াবাসহ এক এক যুবক। | সিলেট চেম্বারের পরিচালনা পরিষদের ২০১৯-২০২১ সাল মেয়াদের দ্বি-বার্ষিক নির্বাচন অনুষ্ঠিত | কুমিল্লা সদর দক্ষিণে যাত্রীবাহি বাসচাপায় ৩ মোটরসাইকেল আরোহী নিহত। | মাধবপুরে দুই কেজি গাঁজা সহ ২ মাদক পাচারকারী আটক | ছেলের জন্য সকলের কাছে দোয়া চাইলেন ক্রিকেটার রুবেল | পুত্র সন্তানের বাবা হলেন রুবেল, মা-ছেলে দুজনেই সুস্থ আছেন | মাদক চোরাকারবারীদের ফাঁদে পরে, বিলিনের পথে মাধবপুরের চা শিল্প! | কুমিল্লা সদরে ট্রেনে কাটা পড়ে দুই ষ্কুল শিক্ষার্থী নিহত। আহত-৩ | কুমিল্লায় গোয়েন্দা পুলিশের অভিযানে ৫ হাজার পিছ ইয়াবাসহ সাংবাদিক শামীম আটক। |

‘নির্বাচন কমিশনের ভূমিকা নিয়ে প্রশ্ন তৈরি হয়েছে’

নিউজ ডেস্ক | জাগো প্রতিদিন .কম
আপডেট : May 22, 2018 , 9:00 am
ক্যাটাগরি : জাতীয়
পোস্টটি শেয়ার করুন

খুলনা সিটি নির্বাচন নিয়ে অনেক প্রশ্নের সৃষ্টি হয়েছে উল্লেখ করে সুশাসনের জন্য নাগরিক-সুজনের সম্পাদক বদিউল আলম মজুমদার বলেছেন, নির্বাচন একটি প্রক্রিয়া। এই প্রক্রিয়াটা বিশ্বাসযোগ্য হতে হবে। আর এই বিশ্বাসযোগ্য করার দায়িত্বটা নির্বাচন কমিশনের।

কিন্তু খুলনায় তারা যেসকল অপারগতা প্রদর্শন করেছে, বা অনীহা দেখিয়েছে, নির্বাচনের সময় আইনশৃঙ্খলা বাহিনী নিয়ন্ত্রণে থাকার কথা কিন্তু খুলনাতে আমরা দেখেছি, বিরোধীদলের নেতাকর্মীদের গ্রেপ্তার করা হয়েছে। ফলে নির্বাচন কমিশনের ভূমিকা নিয়েও প্রশ্ন তৈরি হয়েছে।

সোমবার রাতে বেসরকারি টেলিভিশন চ্যানেল আইয়ের সংবাদপত্র পর্যালোচনা ভিত্তিক অনুষ্ঠান ‘আজকের সংবাদপত্র’ অনুষ্ঠানে তিনি এসব কথা বলেন।

সুজন সম্পাদকের মতে, ঢাকার দুইটিসহ সাত সিটি করপোরেশন নির্বাচন না হলে সংবিধানের ৫৯ অনুচ্ছেদে বলা আছে, এই সকল প্রতিষ্ঠান নির্বাহী বিভাগ দ্বারা পরিচালিত হবে। নির্বাচন যদি না হয় তাহলে সংবিধান লঙ্ঘণ করা হবে। একই সাথে মানুষ ভোটাধিকার থেকে বঞ্চিত হবে। তাই এগুলোর নির্বাচন হওয়া বাঞ্চনীয়। তবে নির্বাচনটা সুষ্ঠু নিরপেক্ষ হতে হবে।

তিনি বলেন, খুলনার আগে রংপুর সিটি করপোরেশন নির্বাচন অত্যান্ত সুষ্ঠু নিরপেক্ষ হয়েছে। এর মাধ্যমে নির্বাচন কমিশন ব্যাপক সুনাম অর্জন করেছে। এরপর যে কতোগুলো স্থানীয় সরকার নির্বাচন হলো, পৌরসভা, ইউনিয়ন পরিষদ এইসব নির্বাচনের মাধ্যমে নির্বাচন কমিশন যে সুনাম অর্জন করেছিল তা বহুলাংশে ক্ষুন্ন হয়েছে খুলনা সিটি নির্বাচনে। এই নির্বাচন নিয়ে অনেক প্রশ্ন সৃষ্টি হয়েছে।

খুলনাতে বিরোধীদলের নেতাকর্মীদের গ্রেপ্তার করা হয়েছে উল্লেখ করে বদিউল আলম মজুমদার বলেন, এমনটা অন্যকোনো নির্বাচনে আমরা দেখিনি। এরফলে যে সমতল ক্ষেত্রের ধারণা সেটা ভণ্ডুল হয়েছে। অভিযোগ করা সত্ত্বেও নির্বাচন কমিশন এ ব্যাপারে ভ্রুক্ষেপও করেনি।

তার অনুযোগ, প্রার্থীদের হলফনামা নিয়ে প্রশ্ন উঠেছে, হলফনামায় মিথ্যা তথ্য দিলে, তথ্য গোপন করলে প্রার্থীতা বাতিল হওয়ার কথা, বা নির্বাচিত হলে মিথ্যা তথ্য দিলে নির্বাচন বাতিল হওয়ার কথা। এই নিয়ে গুরুতর প্রশ্ন উঠেছে, তবে নির্বাচন কমিশন এ ব্যাপারে সম্পূর্ণ নীরব ছিল। শুধু তাই নয়, রিটার্নিং অফিসার নিয়ে অভিযোগ উঠেছে। সেই ব্যাপারে তদন্ত না তাকে নিস্ক্রিয় করে দেয়া হল, একজন উর্ধ্বতন কর্মকর্তাকে তার উপরে বসিয়ে দেয়া হলো। যেটা নজিরবিহীন, এটা এর আগে কোনো দিন ঘটেনি। এই সকল কর্মকাণ্ড নির্বাচনী পুরো প্রক্রিয়াকেই প্রশ্নবিদ্ধ করেছে।

নির্বাচন কমিশন নিজের বিরুদ্ধে কি ব্যবস্থা নিতে পারবে প্রশ্ন রেখে তিনি বলেন, এসবের যথাযথ ব্যবস্থা না নেয়া না হলে ভবিষৎ অন্ধকার। আর আগামী নির্বাচনগুলো এরচেয়ে ভাল হবে বলে আশা করা যায় না। তবুও আশায় বুক বাঁধতে চাই যে, নির্বাচন কমিশন, সরকার, আইনশৃঙ্খলা বাহিনী এবং প্রশাসন আগামী নির্বাচন সুষ্ঠু নিরপেক্ষ করার জন্য সর্বশক্তি নিয়োগ করবে।