সকাল ৯:৩৮ বুধবার ২০শে জানুয়ারি, ২০২১ ইং

ব্রেকিং নিউজ:

কুমিল্লা দেবিদ্বারে ৫০ টাকার লোভ দেখিয়ে ৭ বছরের শিশুকে ধর্ষণ। | কুমিল্লা সদরে ডিবি পুলিশের অভিযানে অস্ত্র ও ৫ শত পিছ ইয়াবাসহ এক এক যুবক। | সিলেট চেম্বারের পরিচালনা পরিষদের ২০১৯-২০২১ সাল মেয়াদের দ্বি-বার্ষিক নির্বাচন অনুষ্ঠিত | কুমিল্লা সদর দক্ষিণে যাত্রীবাহি বাসচাপায় ৩ মোটরসাইকেল আরোহী নিহত। | মাধবপুরে দুই কেজি গাঁজা সহ ২ মাদক পাচারকারী আটক | ছেলের জন্য সকলের কাছে দোয়া চাইলেন ক্রিকেটার রুবেল | পুত্র সন্তানের বাবা হলেন রুবেল, মা-ছেলে দুজনেই সুস্থ আছেন | মাদক চোরাকারবারীদের ফাঁদে পরে, বিলিনের পথে মাধবপুরের চা শিল্প! | কুমিল্লা সদরে ট্রেনে কাটা পড়ে দুই ষ্কুল শিক্ষার্থী নিহত। আহত-৩ | কুমিল্লায় গোয়েন্দা পুলিশের অভিযানে ৫ হাজার পিছ ইয়াবাসহ সাংবাদিক শামীম আটক। |

পুত্রের দুর্ব্যবহার : দায় নিয়ে হল প্রাধ্যক্ষের পদত্যাগ

নিউজ ডেস্ক | জাগো প্রতিদিন .কম
আপডেট : March 8, 2019 , 1:34 pm
ক্যাটাগরি : ক্যাম্পাস
পোস্টটি শেয়ার করুন

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ফজলুল হক মুসলিম হলের প্রাধ্যক্ষ অধ্যাপক ড. মিজানুর রহমান পদত্যাগের ঘোষণা দিয়েছেন। শুক্রবার হলের এক শিক্ষার্থীর সঙ্গে ছেলের দুর্ব্যবহারের দায় মাথায় নিয়ে পদত্যাগের ঘোষণা দেন তিনি। অধ্যাপক ড. মিজানুর রহমান আইন বিভাগের শিক্ষক ও জাতীয় মানবাধিকার কমিশনের সাবেক চেয়ারম্যান।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, শুক্রবার হল মসজিদে নামাজ আদায় করছিলেন মৃত্তিকা পানি ও পরিবেশ বিভাগের ছাত্র রাইহান। এ সময় উদাসীনভাবে হেঁটে যাওয়া প্রাধ্যক্ষের ছেলের পা রাইহানের মাথায় লাগে। তখন রাইহান তাকে (প্রাধ্যক্ষের ছেলে) কোন বিভাগে পড়ে জানতে চান। এতে সে ক্ষেপে গিয়ে রাইহানকে ‘দুই পয়সার ছাত্র’ বলে মন্তব্য করেন। এ সময় প্রাধ্যক্ষ মিজানুর রহমানও এসে জানতে চান কোন শিক্ষার্থী তার ছেলের সঙ্গে দুর্ব্যবহার করেছে? তিনি তাকে নিয়ে আসার কথা বলেন।

সঙ্গে সঙ্গে শিক্ষার্থীরা প্রাধ্যক্ষের পদত্যাগ চেয়ে বিক্ষোভ করতে থাকে এবং তাকে নিজ কার্যালয়ের সামনে অবরুদ্ধ করে রাখেন। খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে ছুটে যান ছাত্রলীগের ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় শাখার সভাপতি সনজিত চন্দ্র দাস ও সাধারণ সম্পাদক সাদ্দাম হোসেন। পরে প্রাধ্যক্ষ অধ্যাপক মিজানুর রহমান ছাত্রদের কাছে ক্ষমা চান এবং পদত্যাগের ঘোষণা দেন।

ফজলুল হক মুসলিম হল শাখা ছাত্রলীগের সভাপতি শাহরিয়ার সিদ্দিকী শিশিম বলেন, ঘটনা সত্য। সাধারণ শিক্ষার্থীরা প্রাধ্যক্ষের ছেলে ও স্যারের ক্ষমা চাওয়ার কথা বলেছে। স্যার ক্ষমা চেয়ে পদত্যাগের ঘোষণা দিয়েছেন।

এ বিষয়ে জানতে অধ্যাপক ড. মিজানুর রহমানকে ফোন করা হলে তার মেয়ে রিসিভ করে বলেন, উনি এখন ব্যস্ত, কিছুক্ষণ পরে কথা বলবেন।

এদিকে এ ঘটনার পর বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্টর অধ্যাপক ড. এ কে এম গোলাম রব্বানীর সঙ্গে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন, সেখানে (ফজলুল হক মুসলিম হল) দুঃখজনক একটা ঘটনা ঘটেছে। স্যার ক্ষমা চেয়েছেন বলে জানতে পেরেছি।