সন্ধ্যা ৭:২০ বুধবার ২৩শে অক্টোবর, ২০১৯ ইং

ব্রেকিং নিউজ:

কুমিল্লা দেবিদ্বারে ৫০ টাকার লোভ দেখিয়ে ৭ বছরের শিশুকে ধর্ষণ। | কুমিল্লা সদরে ডিবি পুলিশের অভিযানে অস্ত্র ও ৫ শত পিছ ইয়াবাসহ এক এক যুবক। | সিলেট চেম্বারের পরিচালনা পরিষদের ২০১৯-২০২১ সাল মেয়াদের দ্বি-বার্ষিক নির্বাচন অনুষ্ঠিত | কুমিল্লা সদর দক্ষিণে যাত্রীবাহি বাসচাপায় ৩ মোটরসাইকেল আরোহী নিহত। | মাধবপুরে দুই কেজি গাঁজা সহ ২ মাদক পাচারকারী আটক | ছেলের জন্য সকলের কাছে দোয়া চাইলেন ক্রিকেটার রুবেল | পুত্র সন্তানের বাবা হলেন রুবেল, মা-ছেলে দুজনেই সুস্থ আছেন | মাদক চোরাকারবারীদের ফাঁদে পরে, বিলিনের পথে মাধবপুরের চা শিল্প! | কুমিল্লা সদরে ট্রেনে কাটা পড়ে দুই ষ্কুল শিক্ষার্থী নিহত। আহত-৩ | কুমিল্লায় গোয়েন্দা পুলিশের অভিযানে ৫ হাজার পিছ ইয়াবাসহ সাংবাদিক শামীম আটক। |

সংসদে সংরক্ষিত আসনে নিশাতকেই চান সবাই

নিউজ ডেস্ক | জাগো প্রতিদিন .কম
আপডেট : জানুয়ারি ৫, ২০১৯ , ৪:১১ পূর্বাহ্ণ
ক্যাটাগরি : রাজনীতি
পোস্টটি শেয়ার করুন

যেখানেই বিপদে কোনো নারী, সেখানেই নিশাত। কখনো হাসপাতালের বারান্দায় অসহায় অন্তঃসত্ত্বার পাশে, কখনো বা অবহেলিত হিজড়া সম্প্রদায়ের পাশে দাঁড়িয়েছেন ছায়া হয়ে। তার প্রচেষ্টায় বদলেছে ব্রাহ্মণবাড়িয়া সদর উপজেলার সীতানগর, কাশিনগর ও ঋষিপাড়ার অবহেলিত নারীদের জীবন। ওই তিন গ্রামের শতশত নারীকে নানা কাজে প্রশিক্ষিত করে আত্মনির্ভরশীল করে তুলেছেন নিশাত।

ব্রাহ্মণবাড়িয়া সদর উপজেলা পরিষদের মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান তাসলিমা সুলতানা খানম নিশাত। সমাজের অসহায় নারীদের জন্য ‘মুক্তির দূত’ হিসেবে বিরামহীনভাবে কাজ করছেন তিনি। শুধু নারীদের কাছেই নয়, নিজ কর্ম গুণে নিশাত এখন সমাজের সর্ব মহলে সমানভাবে স্বীকৃত। নিশাতকে এবার জাতীয় সংসদের সংরক্ষিত নারী আসনের সদস্য করার দাবি উঠেছে। দিন যতই যাচ্ছে জোরালো হচ্ছে ব্রাহ্মণবাড়িয়ার নানা শ্রেণি-পেশার মানুষের সেই দাবি।

বিগত উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে আওয়ামী লীগ নেত্রী নিশাত ৭৫ হাজার ৫২২ ভোট পেয়ে মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান নির্বাচিত হন। নির্বাচিত হওয়ার পর থেকেই ব্রাহ্মণবাড়িয়া-৩ (সদর ও বিজয়নগর) আসনের সংসদ সদস্য র.আ.ম উবায়দুল মোকতাদির চৌধুরীর সহযোগিতায় মডেল উপজেলা পরিষদ গঠন ও নারীদের উন্নয়নে কাজ করে যাচ্ছেন তিনি।

১৯৮৯ সালে ছাত্রলীগের রাজনীতিতে যুক্ত হন নিশাত। সেসময় ব্রাহ্মণবাড়িয়া সরকারি কলেজ ছাত্রলীগের মহিলা বিষয়ক সম্পাদিকা এবং পরবর্তীতে জেলা ছাত্রলীগের মহিলা বিষয়ক সম্পাদিকা নির্বাচিত হয়ে ১৯৯৮ সাল পর্যন্ত দায়িত্ব পালন করেন। এরপর জেলা মহিলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক নির্বাচিত হন। দীর্ঘ এ সময়ে দলের আন্দোলন-সংগ্রামে সক্রিয় অংশগ্রহণের জেরে একাধিক রাজনৈতিক মামলার আসামিও হয়েছেন তিনি।

রাজনৈতিক পরিচয় ছাড়াও নিশাত একজন আইনজীবী, সাংবাদিক, সমাজ ও সংস্কৃতিকর্মী। জনপ্রতিনিধি হওয়ার আগে থেকেই তিনি আইন পেশায় নিয়োজিত ছিলেন। ব্রাহ্মণবাড়িয়া যুগ্ম জেলা জজ প্রথম আদালতের এপিপি হিসেবেও দায়িত্ব পালন করছেন তিনি। ২০০৭ সালে তিনি নারী সাংবাদিকতায় ‘সালমা সোবহান ফেলোশিপ’ (ইলেক্ট্রনিক মিডিয়া) অর্জন করেন। এছাড়া প্রতিবন্ধীদের সেবায় দীর্ঘ সময় নিয়োজিত এই নারী নেত্রী ১৫ বছর সুইডেন থেকে পরিচালিত আসমাতুন্নেছা বুদ্ধিপ্রতিবন্ধী স্কুলের প্রধান শিক্ষক হিসেবে দায়িত্ব পালন করেছেন।

এছাড়াও ব্রাহ্মণবাড়িয়া সদর উপজেলা নারী উন্নয়ন ফোরামের সভাপতি হিসেবে কয়েক বছর ধরে দায়িত্ব পালন করছেন তিনি। তার এ ফোরাম থেকে প্রশিক্ষণ নিয়ে অসহায় নারী ও হিজড়া জনগোষ্ঠী এখন আত্মনির্ভরশীল। পারিবারিক কলহে অসহায় নারীদের আইনি সহায়তা প্রদান, বাল্য বিয়ে রোধ ও ইভটিজিংয়ের বিরুদ্ধেও সবসময় সোচ্চার থাকেন নিশাত। তাই নিশাতকে এবার জাতীয় সংসদের সংরক্ষিত নারী আসনের সদস্য করার দাবি উঠেছে। দলের তৃণমূল নেতাকর্মী থেকে শুরু করে সেই দাবি এখন সমাজের নানা শ্রেণি-পেশার মানুষের।

তাদের মতে, নারীদের উন্নয়নে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা যে কাজ করছেন, নিশাতকে সংরক্ষিত নারী আসনের সংসদ সদস্য করা হলে ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় সে কাজ আরও তরান্বিত হবে। ইতোপূর্বে নবম জাতীয় সংসদে সংরক্ষিত আসনের সদস্য হওয়ার জন্য দলের মনোনয়ন চেয়েছিলেন।

জেলা মহিলা ক্রীড়া সংস্থার সাধারণ সম্পাদক ও জেলা যুব মহিলা লীগের জ্যেষ্ঠ সহসভাপতি মুক্তি খান জাগো নিউজকে বলেন, তৃণমূল পর্যায়ে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার হাতকে শক্তিশালী করার জন্য গত চার বছর ধরে নিশাত আপা সদর উপজেলায় নারীদের রাজনীতিতে স্বতঃস্ফূর্ত অংশগ্রহণের জন্য দারুণভাবে কাজ করছেন। তাই আমরা চাই নিশাত আপা সংরক্ষিত নারী আসনের সংসদ সদস্য হিসেবে আমাদের কাছে আসুক। এতে করে আমরা নারীরা আরও সামনে এগিয়ে যেতে পারব।

ব্রাহ্মণবাড়িয়া সদর উপজেলা মহিলা আওয়ামী লীগের সভাপতি আনোয়ারা বেগম জাগো নিউজকে বলেন, নিশাতকে কখনোই দেখিনি নিজের স্বার্থে কোনো কিছু করতে। মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান হওয়ার পর থেকেই শুধু দেখছি নারীদের কিভাবে এগিয়ে নেয়া যায় সে চেষ্টা করতে। সবসময় গরীব-দুঃখীদের পাশে থাকে সে। মানুষের উপকারের জন্য হলেও এমন একটা মানুষকে সংরক্ষিত আসনের সংসদ সদস্য করার দাবি জানাই আমরা।