বিকাল ৪:৫৪ সোমবার ১৯শে আগস্ট, ২০১৯ ইং

ব্রেকিং নিউজ:

কুমিল্লা লালমাইয়ে যাত্রীবাহী বাসের চাপায় সিএনজি অটোরিকশার ৫ যাত্রী নিহত।আহত-৩ | সিলেটের প্রতীক কিনব্রিজ রক্ষায় উদ্যোগ গ্রহন | কুমিল্লা সদরে র‍্যাব-১১ অভিযানে ৫ হাজার ৬ শত পিছ ইয়াবাসহ মাদক ব্যবসায়ী আটক | কুমিল্লা চৌদ্দগ্রামের চিওড়ায় গরু বোঝাই ট্রাক উল্টে তিন গরু ব্যবসায়ী নিহত। | জিজ্ঞাসাবাদের পর মিন্নি গ্রেফতার | বিশ্বকাপের মঞ্চে ইংল্যান্ড-নিউজিল্যান্ড, ইংলিশদের হাতে উঠবে কি কাপ..? | বিপদসীমার উপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে সুরমার পানি | মিরপুর বেরিবাধে চোর আটক, স্থানীয় সাংসদের আত্মীয় পরিচয়ে বাচার চেষ্টা | বাংলাদেশ যাবে সেমিফাইনালে ! | বাংলাদেশ-অস্ট্রেলিয়া মুখোমুখি হবে নাটিংহামে, আজ বিকাল ৩:৩০ মিনিটে |

গোলাম মাওলা রনিকে ভূমি অফিসের নোটিশ

নিউজ ডেস্ক | জাগো প্রতিদিন .কম
আপডেট : ডিসেম্বর ২০, ২০১৮ , ৫:৫৩ পূর্বাহ্ণ
ক্যাটাগরি : বরিশাল
পোস্টটি শেয়ার করুন

সরকারি জমি ইজারা নিয়ে পাকা বাসভবন নির্মাণ করায় পটুয়াখালী-৩ (গলাচিপা-দশমিনা) আসনে বিএনপির প্রার্থী গোলাম মাওলা রনিকে কারণ দর্শানোর নোটিশ দিয়েছে গলাচিপা উপজেলা ভূমি অফিস।

গলাচিপার সহকারী কমিশনার (ভূমি) সুহৃদ সালেহীনের গত সোমবার স্বাক্ষর করা নোটিশটি মঙ্গলবার রনির বাসায় পৌঁছে দেওয়া হয়েছে। এ বিষয়ে বৃহস্পতিবার শুনানি হবে।

এছাড়া শর্ত ভঙ্গ করায় তাদের নামের ইজারা কেন বাতিল করা হবে না, তা জানতে চেয়ে বুধবারের মধ্যে কারণ দর্শানোর জন্য বলা হয়। রনির পক্ষ থেকে বুধবারই নোটিশের জবাব দেওয়া হয়েছে বলে ভূমি অফিস সূত্রে জানা গেছে।

নোটিশে বলা হয়, অস্থায়ীভাবে ব্যবসা করার জন্য রনি ও স্ত্রী কামরুন নাহার রুনুসহ রনির পরিবারের কয়েকজন ২০০৭-০৮ সালে গলাচিপা উপজেলার রতনদী তালতলী ইউনিয়নের উলানিয়া হাট মৌজায় শূন্য দশমিক ২ একর সরকারি খাসজমি বন্দোবস্ত নেন। শর্তভঙ্গ করে তারা ওই জমিতে আবাসিক দ্বিতল পাকা ভবন নির্মাণ করেন। এ ছাড়া বন্দোবস্ত নেওয়া জমির চেয়ে অতিরিক্ত জমি তারা দখলে রেখেছেন। এসব জমি বন্দোবস্ত নেওয়ার সময় রনি আওয়ামী লীগের এমপি ছিলেন। রনির পাশাপাশি তার স্ত্রী ও মাকেও নোটিশ দেওয়া হয়েছে।

রনির বক্তব্য জানতে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন, ‘আমি সহকারী কমিশনার (ভূমি) গলাচিপাকে নোটিশের যে জবাব দিয়েছি ওটাই আমার বক্তব্য।’

ওই লিখিত জবাবে গোলাম মাওলা রনি বলেন, ‘আমাদের নামের ভূমি বরাদ্দের ফাইলটি গলাচিপা ভূমি অফিস গোপন করে রেখেছে। গত ৭-৮ বছর চেষ্টা করেও ফাইলটির হদিস পাওয়া যায়নি। এর ফলে খাজনা পরিশোধ করা সম্ভব হয়নি। এমনকি ভূমি অফিস থেকে খাজনা পরিশোধের কোনো নোটিশও দেওয়া হয়নি গত ৭-৮ বছরে। এ অবস্থায় নির্বাচনের সময়ে কেন এই নোটিশ দেওয়া হয়েছে তা আমরা সবাই বুঝি এবং তেমনি মহামান্য হাইকোর্টও বুঝবেন।’

সুহৃদ সালেহীন জানান, শুধু গোলাম মাওলা রনিকেই নোটিশ করা হয়নি। শর্ত ভঙ্গের কারণে ওই এলাকার আরও ১৬ জনকে নোটিশ করা হয়েছে। সূত্র: সমকাল।