সকাল ৮:৩১ সোমবার ৩০শে নভেম্বর, ২০২০ ইং

ব্রেকিং নিউজ:

কুমিল্লা দেবিদ্বারে ৫০ টাকার লোভ দেখিয়ে ৭ বছরের শিশুকে ধর্ষণ। | কুমিল্লা সদরে ডিবি পুলিশের অভিযানে অস্ত্র ও ৫ শত পিছ ইয়াবাসহ এক এক যুবক। | সিলেট চেম্বারের পরিচালনা পরিষদের ২০১৯-২০২১ সাল মেয়াদের দ্বি-বার্ষিক নির্বাচন অনুষ্ঠিত | কুমিল্লা সদর দক্ষিণে যাত্রীবাহি বাসচাপায় ৩ মোটরসাইকেল আরোহী নিহত। | মাধবপুরে দুই কেজি গাঁজা সহ ২ মাদক পাচারকারী আটক | ছেলের জন্য সকলের কাছে দোয়া চাইলেন ক্রিকেটার রুবেল | পুত্র সন্তানের বাবা হলেন রুবেল, মা-ছেলে দুজনেই সুস্থ আছেন | মাদক চোরাকারবারীদের ফাঁদে পরে, বিলিনের পথে মাধবপুরের চা শিল্প! | কুমিল্লা সদরে ট্রেনে কাটা পড়ে দুই ষ্কুল শিক্ষার্থী নিহত। আহত-৩ | কুমিল্লায় গোয়েন্দা পুলিশের অভিযানে ৫ হাজার পিছ ইয়াবাসহ সাংবাদিক শামীম আটক। |

র‍্যাব ক্যাম্পে ব্যবসায়ীদের মাদক রেখে যেতে বললেন ডিজি

নিউজ ডেস্ক | জাগো প্রতিদিন .কম
আপডেট : May 14, 2018 , 11:50 am
ক্যাটাগরি : জাতীয়
পোস্টটি শেয়ার করুন

মাদক বিক্রেতা ও সেবনকারীদের মাদক ছেড়ে দেয়ার আহ্বান জানিয়েছেন র‍্যাবের মহাপরিচালক (ডিজি) বেনজীর আহমেদ। একই সাথে ব্যবসায়ীদের কাছে থাকা অবিক্রিত মাদক র‍্যাব ক্যাম্পের আশপাশে ফেলে যাওয়ার নির্দেশ দিয়েছেন তিনি।

দেশব্যাপী মাদকের বিরুদ্ধে সাঁড়াশি অভিযানের ঘোষণা দিয়ে ক্রেতা ও বিক্রেতাদের উদ্দেশ্যে তিনি বলেন, যারা মাদক সেবন করেন তারা মাদক থেকে সরে আসবেন। আর যারা মাদকের খুচরা বিক্রেতা, ডিলার অথবা চোরাকারবারী তারা মাদক বিক্রি ও চোরাচালান বন্ধ করে দেবেন। এটাই আপনাদের জন্য ভালো হবে।

সোমবার দুপুরে রাজধানীর কারওয়ান বাজারে র‍্যাবের মিডিয়া সেন্টারে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে তিনি এসব কথা বলেন।

বেনজীর আহমেদ বলেন, যেসব মাদক ব্যবসায়ীর হাতে এখনও মাদক আছে তা র‍্যাবের বিভিন্ন ক্যাম্পের পাশে ফেলে রেখে যান। নয়তো মাদক প্রতিরোধে আইনি ব্যবস্থায় যতো কাঠামো আছে তার সর্বোচ্চ প্রয়োগ করবে র‍্যাব।

র‍্যাব মহাপরিচালক বলেন, মাদক এখন জাতীয় সমস্যা। সবার সহযোগিতা নিয়ে সর্বগ্রাসী এ সমস্যাকে রুখতে হবে। মাদকের শেকড় মূলোৎপাটন করা হবে। তারা যাতে আইনের কোনো ফাঁক দিয়ে পার না পায়, এজন্য আইনজীবীদেরও সহযোগিতা প্রয়োজন।

র‍্যাবের ডিজি জানান, মাদকের বিরুদ্ধে প্রধানমন্ত্রীর সাঁড়াশি অভিযানের ঘোষণার প্রেক্ষিতে গত ৪ মে থেকে র‍্যাব বিশেষ অভিযান শুরু করে। গত ৯ দিনে র‍্যাবের বিশেষ ভ্রাম্যমাণ আদালতের অভিযানে ১ হাজার ৪১৫ জন মাদকসেবী ও ব্যবসায়ীকে সাজা দেয়া হয়।

তিনি আরো জানান, এসব অভিযানে ২০ লাখ টাকার বেশি আর্থিক জরিমানা আদায় করা হয় এবং ১৫ কোটি টাকার মাদকদ্রব্য উদ্ধার হয়।

এছাড়া ৩৮১ জনের বিরুদ্ধে নিয়মিত আইনে ব্যবস্থা নেওয়া হয়।

বেনজীর আহমেদ বলেন, মাদকের বিরুদ্ধে আমাদের বিশেষ এই অভিযানের কার্যক্রমটা হবে মূলত ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনার মাধ্যমেই। অপারেশনের মাধ্যমে মাদক বিক্রেতা ও সেবনকারীদের সাজা দেওয়া হবে। প্রয়োজন অনুযায়ী নিয়মিত আইনেও ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

মাদকের বিরুদ্ধে সমাজের সকল স্তরের মানুষের সম্মিলিত দায়িত্ব পালনের আহ্বান জানিয়ে র‍্যাবের ডিজি বলেন, মাদকের ভয়াবহ আগ্রাসন ম্যাজিকের মতো নিয়ন্ত্রণে আনার কথা বলছি না, তবে সবার সম্মিলিত প্রচেষ্টায় এটা নিয়ন্ত্রণে আসবে বলে আশা করি।

এ সময় মাদক নিয়ন্ত্রণ আইন আরো কঠোর করে দ্রুত হালনাগাদ করে প্রণয়ন করতে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের প্রতি আহ্বান জানান বেনজীর আহমেদ।

মাদক বহনে গণপরিবহনের পাশাপাশি অনেক সরকারি-বেসরকারি গাড়ি ব্যবহৃত হয় উল্লেখ করে বেনজীর আহমেদ বলেন, মালিকরা তাদের গাড়ি কোন কাজে ব্যবহৃত হয় বিষয়টা খেয়াল রাখবেন।

সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর কোনো সদস্য যদি মাদক ব্যবসার সঙ্গে জড়িত থাকেন, আশা করব তারা সতর্ক হবেন, এ পথ থেকে সরে আসবেন। এটা কোনো সুনির্দিষ্ট ব্যক্তিকেন্দ্রিক অভিযান নয়, সামগ্রিক অভিযান। কাউকে বাদ দিয়ে নয় এবং কোনো সুনির্দিষ্ট ব্যক্তিকেন্দ্রিক নয়। যারা জড়িত সবার বিরুদ্ধে অভিযান বলবৎ থাকবে।

র‍্যাব প্রতিষ্ঠার পর গত ১৪ বছরে ৬৮ হাজার ৪৯৮ জন মাদকসেবী ও মাদক ব্যবসায়ীকে গ্রেফতার করা হয়েছে বলেও সংবাদ সম্মেলনে জানান বাহিনীটির প্রধান। জন্মলগ্ন থেকে এখন পর্যন্ত র‍্যাব ১ হাজার ৭০০ কোটি টাকা মূল্যের মাদকদ্রব্য উদ্ধার করেছে বলেও ব্রিফিংয়ে জানানো হয়।