সকাল ৮:১৭ সোমবার ৩০শে নভেম্বর, ২০২০ ইং

ব্রেকিং নিউজ:

কুমিল্লা দেবিদ্বারে ৫০ টাকার লোভ দেখিয়ে ৭ বছরের শিশুকে ধর্ষণ। | কুমিল্লা সদরে ডিবি পুলিশের অভিযানে অস্ত্র ও ৫ শত পিছ ইয়াবাসহ এক এক যুবক। | সিলেট চেম্বারের পরিচালনা পরিষদের ২০১৯-২০২১ সাল মেয়াদের দ্বি-বার্ষিক নির্বাচন অনুষ্ঠিত | কুমিল্লা সদর দক্ষিণে যাত্রীবাহি বাসচাপায় ৩ মোটরসাইকেল আরোহী নিহত। | মাধবপুরে দুই কেজি গাঁজা সহ ২ মাদক পাচারকারী আটক | ছেলের জন্য সকলের কাছে দোয়া চাইলেন ক্রিকেটার রুবেল | পুত্র সন্তানের বাবা হলেন রুবেল, মা-ছেলে দুজনেই সুস্থ আছেন | মাদক চোরাকারবারীদের ফাঁদে পরে, বিলিনের পথে মাধবপুরের চা শিল্প! | কুমিল্লা সদরে ট্রেনে কাটা পড়ে দুই ষ্কুল শিক্ষার্থী নিহত। আহত-৩ | কুমিল্লায় গোয়েন্দা পুলিশের অভিযানে ৫ হাজার পিছ ইয়াবাসহ সাংবাদিক শামীম আটক। |

প্রজ্ঞাপন জারির দাবিতে ফের উত্তাল বিশ্ববিদ্যালয়গুলো

নিউজ ডেস্ক | জাগো প্রতিদিন .কম
আপডেট : May 14, 2018 , 7:39 am
ক্যাটাগরি : জাতীয়
পোস্টটি শেয়ার করুন

সরকারি চাকরিতে কোটা বাতিলে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ঘোষণার পর এক মাস পার হলেও প্রজ্ঞাপন জারি না হওয়ায় ফের আন্দোলনে নেমেছেন বিভিন্ন শিক্ষা-প্রতিষ্ঠানের সাধারণ শিক্ষার্থীরা।এর আগে গতকাল রোববার থেকে বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয়ে বাংলাদেশ সাধারণ ছাত্র অধিকার সংরক্ষণ পরিষদের নেতৃত্বে বিক্ষোভ মিছিল করা হয়। ওইদিন তারা প্রজ্ঞাপন জারির জন্য বিকেল পাঁচটা পর্যন্ত আল্টিমেটাম দেন। অন্যথায় অনির্দিষ্টকালের জন্য ক্লাস-পরীক্ষা বর্জন করে সারাদেশের শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানগুলো অচল করে দেওয়ার হুমকি দেন।

এরই ধারাবাহিকতায় আজ সোমবার থেকে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়সহ দেশের বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয়ে ক্লাস-পরীক্ষা বর্জন করে শিক্ষার্থীরা বিক্ষোভ-ধর্মঘট পালন করছেন। বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিনিধিদের পাঠানো তথ্যে আন্দোলনের তথ্যচিত্র তুলে ধরা হল-

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়:

সোমবার সকাল ১০টা থেকে ঢাবির কেন্দ্রীয় গ্রন্থাগারের সামনে জড়ো হন হাজারো শিক্ষার্থী। এসময় কোনো কালক্ষেপণ না করে অবিলম্বে চাকরিতে কোটা পদ্ধতি সংস্কারে প্রজ্ঞাপন জারির আহ্বান জানিয়ে স্লোগান দেন তারা।

এরপর বেলা সাড়ে ১১টায় কেন্দ্রীয় গ্রন্থাগারের সামনে থেকে মিছিল বের করা হয়। তাদের একটি অংশ বিক্ষোভ মিছিল নিয়ে ঢাবির বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ স্থান ঘুরেন।

মিছিলে শিক্ষার্থীরা, ‘আর নয় কালক্ষেপণ, দিতে হবে প্রজ্ঞাপন’, শেখ হাসিনার ঘোষণা, বাস্তবায়ন করতে হবে’ ইত্যাদি স্লোগান দেন।

রাবিতে বাস বন্ধ করে বিক্ষোভ:

রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের বাস চলাচল বন্ধ করে বিক্ষোভ করেন আন্দোলনকারী শিক্ষার্থীরা। সকাল আটটার দিকে তারা ক্যাম্পাস থেকে কোনো বাস বের হতে দেননি। এছাড়া কেন্দ্রীয় কর্মসূচির অংশ হিসেবে ক্লাস-পরীক্ষা বর্জন করে সকাল থেকে বিশ্ববিদ্যালয়ের কেন্দ্রীয় গ্রন্থাগারের সামনে অবস্থান নিয়ে বিক্ষোভ করছেন শিক্ষার্থীরা।

কেন্দ্রীয় কর্মসূচির অংশ হিসেবে তারা ধর্মঘট পালন করছেন বলে জানান সাধারণ ছাত্র অধিকার সংরক্ষণ পরিষদের রাবি শাখার যুগ্ম আহ্বায়ক মোরশেদ আলম।

বিশ্ববিদ্যালয়ের পরিবহন প্রশাসক ড. এফএম আলী হায়দার পরিবর্তন ডটকমকে জানান, সকালে বাস ছাড়ার প্রস্তুতি নিলে কোটা সংস্কার আন্দোলনকারীরা এসে তা আটকে দেন। এরপর থেকে বাস বন্ধ রাখা হয়েছে।

চবিতে শাটল ট্রেন আটকে দিয়েছে আন্দোলনকারীরা:

কোটা পদ্ধতি বাতিলের ঘোষণার প্রজ্ঞাপন জারি না হওয়ায় কেন্দ্রীয় কমিটির সঙ্গে একাত্মতা প্রকাশ করে অনির্দিষ্টকালের জন্য ক্লাস ও পরীক্ষা বর্জন চলছে চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ে (চবি)।

এরই অংশ হিসেবে সোমবার সকাল ৮টার দিকে শহর থেকে ছেড়ে আসা শাটল ট্রেনটি অবরোধ করেন আন্দোলনকারী শিক্ষার্থীরা। শাটল ট্রেন না আসর কারণে কার্যতই অচল হয়ে পরে চবি ক্যাম্পাস।

সকাল ১০টায় ক্যাম্পাস ঘুরে দেখা যায়, বিশ্ববিদ্যালয়ের কোনো বিভাগে ক্লাস বা পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হয়নি এবং আন্দোলন চলছে।

এদিকে কোটা আন্দোলনকে ঘিরে অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে চট্টগ্রাম নগরীরর ষোলশহর রেল স্টেশনে।

বিশ্ববিদ্যালয়ের পরিবহন দপ্তরের প্রশাসক প্রফেসর ড. মোহাম্মদ বশির আহাম্মদ পরিবর্তন ডটকমকে বলেন, শিক্ষক বাস চলাচল স্বাভাবিক রয়েছে।

শাবিতে মানববন্ধন-বিক্ষোভ সমাবেশ:

একই দাবিতে শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ে অবস্থান কর্মসূচি, বিক্ষোভ মিছিল ও সমাবেশ করেছে সাধারণ শিক্ষার্থীরা। সোমবার সকাল ৮টায় বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রধান ফটকে অবস্থান নেন শিক্ষার্থীরা।

পরে সকাল সাড়ে ১০টায় প্রধান ফটক হতে একটি বিক্ষোভ মিছিল বের হয়। মিছিলটি বিশ্ববিদ্যালয়ের বিভিন্ন সড়ক প্রদক্ষিণ করে কেন্দ্রীয় গ্রন্থাগার ভবনের সামনে এসে একটি সমাবেশে মিলিত হয়।

সমাবেশে বক্তারা বলেন, ‘আমাদের আন্দোলন সাধারণ শিক্ষার্থীদের আন্দোলন, কোনো সরকারবিরোধী আন্দোলন নয়।

আজ যদি প্রজ্ঞাপন জারি হয়, আজই আমরা পড়ার টেবিলে চলে যাব প্রধানমন্ত্রী কোটা বাতিলের নির্দেশ দেয়ার এক মাসেরও বেশি সময় অতিক্রম হওয়ার পরেও এ ব্যাপারে কোনো পদক্ষেপ না নেয়ায় আমরা আশাহত হয়েছি।’

উল্লেখ্য, গত ৮ এপ্রিল ঢাকায় কোটা সংস্কার দাবিতে শিক্ষার্থীরা আন্দোলনে নামলে তাদের ওপর পুলিশ চড়াও হয়। এর পরের দিন থেকে এই আন্দোলন দেশব্যাপী ছড়িয়ে পড়ে।

উদ্ভুত পরিস্থিতিতে সরকারের পক্ষে সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের আন্দোলনকারীদের সঙ্গে বৈঠক করে ৭ মের মধ্যে কোটা সংস্কারের সিদ্ধান্ত নেন। পরে ১১ এপ্রিল প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা জাতীয় সংসদে দেয়া ভাষণে সব ধরনের কোটা বাতিলের ঘোষণা দেন।