রাত ১১:০২ শুক্রবার ২৭শে নভেম্বর, ২০২০ ইং

ব্রেকিং নিউজ:

কুমিল্লা দেবিদ্বারে ৫০ টাকার লোভ দেখিয়ে ৭ বছরের শিশুকে ধর্ষণ। | কুমিল্লা সদরে ডিবি পুলিশের অভিযানে অস্ত্র ও ৫ শত পিছ ইয়াবাসহ এক এক যুবক। | সিলেট চেম্বারের পরিচালনা পরিষদের ২০১৯-২০২১ সাল মেয়াদের দ্বি-বার্ষিক নির্বাচন অনুষ্ঠিত | কুমিল্লা সদর দক্ষিণে যাত্রীবাহি বাসচাপায় ৩ মোটরসাইকেল আরোহী নিহত। | মাধবপুরে দুই কেজি গাঁজা সহ ২ মাদক পাচারকারী আটক | ছেলের জন্য সকলের কাছে দোয়া চাইলেন ক্রিকেটার রুবেল | পুত্র সন্তানের বাবা হলেন রুবেল, মা-ছেলে দুজনেই সুস্থ আছেন | মাদক চোরাকারবারীদের ফাঁদে পরে, বিলিনের পথে মাধবপুরের চা শিল্প! | কুমিল্লা সদরে ট্রেনে কাটা পড়ে দুই ষ্কুল শিক্ষার্থী নিহত। আহত-৩ | কুমিল্লায় গোয়েন্দা পুলিশের অভিযানে ৫ হাজার পিছ ইয়াবাসহ সাংবাদিক শামীম আটক। |

মহানগর বিএনপির বিক্ষোভ কর্মসূচি পালন

নিউজ ডেস্ক | জাগো প্রতিদিন .কম
আপডেট : May 9, 2018 , 4:05 pm
ক্যাটাগরি : রাজনীতি
পোস্টটি শেয়ার করুন

বেগম খালেদা জিয়ার নিঃশর্ত মুক্তি ও তার সুচিকিৎসার দাবিতে ঢাকায় সমাবেশ করতে না দেয়া এবং পুলিশি বাধার প্রতিবাদে কেন্দ্র ঘোষিত কর্মসূচির অংশ হিসেবে ঢাকা মহানগর উত্তর ও দক্ষিণ থানায় থানায় বিক্ষোভ কর্মসূচি পালন করেছে বিএনপি।

বৃহস্পতিবার মহানগর বিএনপির দুই সংগঠন এ কর্মসূচি পালন করে। সংগঠন দুটির পক্ষে থেকে গণমাধ্যমে পাঠানো এক বিবৃতিতে এ তথ্য জানানো হয়।

বিবৃতিতে জানানো হয়, বাড্ডা, ভাটারা ও রামপুরা থানার একটি যৌথ মিছিল বাড্ডা গুদারা ঘাট থেকে শুরু করতে গেলে পুলিশি বাধায় মিছিলটি পণ্ড হয়ে যায়।

পল্লবী থানা বিএনপির একটি মিছিল কমিশনার সাজ্জাদ ও বুলবুল মল্লিকের নেতৃত্বে অনুষ্ঠিত হয়। মিছিলটি অনিক প্লাজার সামনে থেকে পূরবী সিনেমা হলের সামনে গেলে পুলিশি তৎপরতায় ছত্রভঙ্গ হয়ে যায়। মিছিলে আরও উপস্থিত ছিলেন মাহবুবুল আলম মন্টু, আলমাস হোসেন খোকন, সোহরাব হোসেন মোল্লা, আমান উল্লা আমান সহ থানা বিএনপি ও অঙ্গ সংগঠনের নেতাকর্মীরা।

মোহাম্মদপুর থানা বিএনপির একটি মিছিল ঢাকা মহানগর উত্তর বিএনপির সাংগঠনিক সম্পাদক সোহেল রহমানের নেতৃত্বে অনুষ্ঠিত হয়। এ সময় বিএনপি ও অঙ্গ সংগঠনের নেতৃবৃন্দ উপস্থিত ছিল। মিছিলটি আসাদগেট থেকে টাউন হলের সামনে গিয়ে শেষ হয়।

রূপনগর থানা বিএনপির একটি মিছিল আ. আউয়াল ও ইঞ্জি. মজিবুর রহমানের নেতৃত্বে অনুষ্ঠিত হয়। মিছিলে আরও উপস্থিত ছিলেন মো. মজিবুল হক, মো. আমজাদ হোসেন মোল্লা, এস, মো. সোহেল রানা, মো. কামাল হোসেন, মো. জালাল হাওলাদার, মো. নজরুল ইসলাম শাহীন, মো. নাছির, মো. গনি ফকির, মো. খোকন, সিপু মোল্লা, আলাউদ্দিন, মো. দীন ইসলাম, এমরান মোল্লা, মো. হাদিউল ইসলাম রাজিব, মো. আরিফুল ইসলাম, মো. রাফি, মো. কাউসার সহ থানা বিএনপি ও অঙ্গ সংগঠনের নেতৃবৃন্দ।

মিরপুর ও শাহআলী থানা বিএনপির একটি যৌথ বিক্ষোভ মিছিল ১০ নম্বর সেনপাড়া পর্বতা থেকে শুরু হয়ে আল হেলাল হাসপাতালের সামনে গিয়ে শেয় হয়। ঢাকা মহানগর উত্তর বিএনপির সহ-সভাপতি ফেরদৌসী আহমেদ মিষ্টি ও বিএনপি নেতা আবুল হোসেন আব্দুলের নেতৃত্বে অনুষ্ঠিত হয়। থানা বিএনপি ও অঙ্গ সংগঠনের নেতাকর্মীরা মিছিলে উপস্থিত ছিলেন।

খিলক্ষেত থানা বিএনপির একটি বিক্ষোভ মিছিল হাজী এস.এম ফজলুল হক ফজলুর নেতৃত্বে অনুষ্ঠিত হয়। মিছিলে উপস্থিত ছিলেন প্রফেসর আখতারুজ্জামান আক্তার, সোহরাব খান স্বপন, সি এম আনোয়ার হোসেন, জহির উদ্দিন বাবু, রাসেল বাবু, পান্না ইয়াসমিন, আসাদুজ্জামান জিসান, মজনু দর্জী, সোলেমান, শহিদুল ইসলাম খোকন, মাহফুজুর রহমান বাবু, সোহেল রানা বাবু, মো. রানা, নুরুল আফসার নাসিরসহ খিলক্ষেত থানা বিএনপি ও অঙ্গ সংগঠনের বিভিন্ন পর্যায়ের নেতৃবৃন্দ ।

তুরাগ থানা বিএনপির একটি বিক্ষোভ মিছিল অধ্যক্ষ আবু তাহের খান আবুলের নেতৃত্বে অনুষ্ঠিত হয়। আর উপস্থিত ছিলেন ওমর আলী, মিসির, আব্দুল আউয়াল, তাজুল ইসলাম সহ বিএনপি ও অঙ্গ সংগঠনের নেতৃবৃন্দ। মিছিলটি উত্তরা ১০নং সেক্টর থেকে কামারপাড়া যেয়ে শেষ হয়।

আদাবর থানা বিএনপির একটি বিক্ষোভ মিছিল ঢাকা মহানগর উত্তর বিএনপির সহ-সভাপতি আবুল হাশেম ও বিএনপি নেতা কামাল সরকারের নেতৃত্বে অনুষ্ঠিত হয়। মিছিলে থানা বিএনপি ও অঙ্গ সংগঠনের নেতাকর্মীরা উপস্থিত ছিলেন।

দক্ষিণখান ও উত্তরখান থানা বিএনপির একটি যৌথ বিক্ষোভ মিছিল পুলিশি হামলায় পণ্ড হয়ে যায়। মিছিলে আলী আকবর আলী, নাজিম উদ্দিন দেওয়ান ও আমিরুল ইসলাম বাবলুসহ থানা বিএনপি ও অঙ্গসংগঠনের নেতৃবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।

এছাড়াও তেজগাঁও, উত্তরা পশ্চিম, উত্তরখান, ভাষানটেক, ক্যান্টনমেন্ট, বনানী, গুলশান থানায় বিক্ষোভ মিছিল অনুষ্ঠিত হয়।

মহানগর উত্তর বিএনপি থানায় থানায় বিক্ষোভ মিছিল কর্মসূচি সফল করায় সংগঠনের সভাপতি এম.এ কাইয়ুম এবং সাধারণ সম্পাদক আহসান উল্লাহ হাসান সর্বস্তরের নেতকর্মীদেরকে প্রাণঢালা শুভেচ্ছা ও ধন্যবাদ জানান।

একই দাবিতে ঢাকা মহানগর বিএনপি দক্ষিণও থানায় থানায় বিক্ষোভ মিছিল অনুষ্ঠিত হয়। পুলিশি বাধার মধ্যেও বিভিন্ন থানার নেতৃবৃন্দ স্বতঃস্ফূর্তভাবে এই কর্মসূচি সফল করেন। কর্মসূচি চলাকালে বিভিন্ন স্থান থেকে পুলিশি হামলায় ঢাকা মহানগর দক্ষিণ বিএনপি এবং অঙ্গ ও সহযোগী সংগঠনের নেতৃবৃন্দসহ ১০/১২ জন আহত হন বলে বিবৃতিতে জানানো হয়।

শাহবাগ থানা যুগ্ম আহবায়ক এবং ২০নং ওয়ার্ডের আহবায়ক জাহিদ হোসেন নয়াবের নেতৃত্বে পল্টন প্রীতম হোটেলের সামনে থেকে শুরু করে বিজয়নগর হয়ে নাইটিঙ্গেল হোটেলের সামনে গেলে পুলিশের ধাওয়ায় মিছিলটি ছত্রভঙ্গ হযে যায়। অপর একটি বিক্ষোভ মিছিল শাহবাগ থানা ২০নং ওয়ার্ড বিএনপির একটি বিক্ষোভ মিছিল ঢাকা মেডিক্যাল এর ইমাজেন্সির সামনে থেকে শুরু হয়ে বিভিন্ন সড়ক প্রদক্ষিণ করে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের অমর একুশে হলের সামনে গিয়ে শেষ হয়। বিএনপি নেতা হাসিবুর রহমান মান্নু ও হাজী মো. সোলায়মান আলী আরামবাগ ডালাস স্টুডিও সামনে থেকে শুরু হয়ে ফকিরাপুল সিগনাল বাতির সামনে গেলে পুলিশের বাধায় মিছিল টি ছত্রভঙ্গ হয়ে যায়।

যাত্রাবাড়ী থানা বিএনপির উদ্যোগে সকালে ধোলাইপাড় থেকে শুরু করে যাত্রাবাড়ী টানপাড়া যাওয়া মাত্রই পুলিশি আক্রমণে মিছিলটি ছত্রভঙ্গ হয়ে যায়।

ঢাকা মহানগর দক্ষিণ বিএনপির যুগ্ম সম্পাদক খতিুবুর রহমান খোকনের নেতৃত্বে চকবাজার থানা বিএনপির উদ্যোগে বেচারাম দেউড়ি পায়রা চত্বর থেকে শুরু হয়ে খালেকুজ্জামান হাসপাতাল হয়ে রজনীবোস লেন হয়ে বিভিন্ন সড়ক প্রদক্ষিণ করে মিটফোট হাসপাতালের সামনে গিয়ে শেষ হয়।

ঢাকা মহানগর দক্ষিণ বিএনপির সহ-সভাপতি মো. সিরাজুল ইসলামের নেতৃত্বে কলাবাগান থানা বিএনপির একটি বিক্ষোভ মিছিল সোনারগাঁও পার্ক ফোয়ারা হয়ে পান্থপথ গিয়ে বিক্ষোভ মিছিল শেষ হয়।

কামরাঙ্গীরচর থানা বিএনপি নেতা হাজী মনির হোসেন চেয়ারম্যানের নেতৃত্বে পূর্ব রসুলপুর প্রধান সড়ক হতে শুরু হয়ে বিভিন্ন সড়ক প্রদক্ষিণ করে বেড়িবাঁধ প্রধান সড়কে গিয়ে শেষ হয়।

কদমতলী থানা বিএনপি ঢাকা মহানগর দক্ষিণ বিএনপির সহ-সভাপতি ও কদমতলী থানা বিএনপির সভাপতি হাজী মীর হোসেন মীরু নেতৃত্বে জুরাইন রেলগেট হতে বিভিন্ন সড়ক প্রদক্ষিণ করে ধোলাইপাড় গীত সংগীত সিনেমা হলের সামনে গিয়ে শেষ হয়।

সূত্রাপুর থানা বিএনপির একটি বিক্ষোভ মিছিল ঢাকা মহানগর দক্ষিণ বিএনপির যুগ্ম সম্পাদক আ. সাত্তারের নেতৃত্বে লোহারপুর মোড় থেকে শুরু করে সূত্রাপুর কমিউনিটি সেন্টারের সামনে যেতেই পুলিশি বাধার মুখে ছত্রভঙ্গ হয়ে যায়।

সূত্রাপুর থানা বিএনপির একটি বিক্ষোভ মিছিল ঢাকা মহানগর দক্ষিণ বিএনপির যুগ্ম সম্পাদক গেন্ডারিয়া থানা বিএনপির সভাপতি মো. মকবুল ইসলাম খান টিপু নেতৃত্বে সায়েদাবাদ রেলগেট থেকে শুরু হয়ে রাজধানী সুপার মার্কেটের সামনে গিয়ে শেষ হয়।

বংশাল থানা বিএনপির উদ্যোগে একটি বিক্ষোভ মিছিল নর্থ সাউথ রোড থেকে শুরু হয়ে নাজিরা বাজার, আলু বাজার এবং বিভিন্ন সড়ক প্রদক্ষিণ করে এবং সিদ্দিক বাজারে গিয়ে শেষ করে।

বংশাল থানা বিএনপির উদ্যোগে আরও একটি বিক্ষোভ মিছিল থানা বিএনপি নেতা মোঃ হুমায়নের নেতৃত্বে থানার আবুল হাসানাথ রোড থেকে শুরু হয়ে বিভিন্ন সড়ক প্রদক্ষিণ করে চাংকারপুল গিয়ে শেষ হয়।

ডেমরা থানা বিএনপি ডেমরা ইউনিয়ন বিএনপির সভাপতি হাজী আবুল হাশেমের নেতৃত্বে ডেমরা বামুল থেকে শুরু হয়ে বিভিন্ন সড়ক প্রদক্ষিণ করে ডেমরা স্টাফ কোয়াটার সামনে গিয়ে শেষ হয়।

শ্যামপুর থানা একটি বিক্ষোভ মিছিল বিএনপি নেতা সিনিয়র সহ-সভাপতি হাজী মোজাম্মেল ও সাংগঠনিক সম্পাদক কাজী মাহবুব মাওলা হিমেলের নেতৃত্বে জুরাইন বাজার থেকে গেন্ডারিয়া রেলওয়ে স্টেশন গিয়ে শেষ হয়।

লালবাগ থানা বিএনপির একটি বিক্ষোভ আজিমপুর বটতলা থেকে শুরু করে আজিমপুর ওয়েস্টার্ন স্কুলের সামনে গিয়ে শেষ হয়। মিছিলে অন্যদের মধ্যে অংশ নেন বিএনপি নেতা মোঃ আমিন, সুইট, আনোয়ার, টুলিপ, মঞ্জু, খোকন, বাদশা, মাসুম প্রমুখ।

কোতয়ালী থানা বিএনপির একটি বিক্ষোভ বাবু বাজার বাদামতলী এলাকা থেকে শুরু করে নবাববাড়ী গেটে আসলে পুলিশি বাধার মুখে মিছিলটি ছত্রভঙ্গ হয়ে যায়।

এ ছাড়াও ঢাকা মহানগর দক্ষিণ বিএনপির রমনা, খিলগাঁও, মুগদা, পল্টন, ওয়ারী, সবুজবাগ, শাজাহানপুর, হাজারীবাগ, ধানমন্ডি, নিউ মার্কেট থানার নেতাকর্মীরা বিক্ষোভ মিছিল করেন। অতপর ঢাকা মহানগর বিএনপি’র সভাপতি জনাব হাবিব-উন-নবী খান সোহেল এবং সাধারণ সম্পাদক কাজী আবুল বাশার মহনগর সকল গ্রেফতারকৃত নেতাদের মুক্তি দাবি ও সকল নেতাকর্মীদের ধন্যবাদ জানান।