সকাল ৮:১৬ মঙ্গলবার ১৯শে জানুয়ারি, ২০২১ ইং

ব্রেকিং নিউজ:

কুমিল্লা দেবিদ্বারে ৫০ টাকার লোভ দেখিয়ে ৭ বছরের শিশুকে ধর্ষণ। | কুমিল্লা সদরে ডিবি পুলিশের অভিযানে অস্ত্র ও ৫ শত পিছ ইয়াবাসহ এক এক যুবক। | সিলেট চেম্বারের পরিচালনা পরিষদের ২০১৯-২০২১ সাল মেয়াদের দ্বি-বার্ষিক নির্বাচন অনুষ্ঠিত | কুমিল্লা সদর দক্ষিণে যাত্রীবাহি বাসচাপায় ৩ মোটরসাইকেল আরোহী নিহত। | মাধবপুরে দুই কেজি গাঁজা সহ ২ মাদক পাচারকারী আটক | ছেলের জন্য সকলের কাছে দোয়া চাইলেন ক্রিকেটার রুবেল | পুত্র সন্তানের বাবা হলেন রুবেল, মা-ছেলে দুজনেই সুস্থ আছেন | মাদক চোরাকারবারীদের ফাঁদে পরে, বিলিনের পথে মাধবপুরের চা শিল্প! | কুমিল্লা সদরে ট্রেনে কাটা পড়ে দুই ষ্কুল শিক্ষার্থী নিহত। আহত-৩ | কুমিল্লায় গোয়েন্দা পুলিশের অভিযানে ৫ হাজার পিছ ইয়াবাসহ সাংবাদিক শামীম আটক। |

কথোপকথন : বেশ্যা ও খদ্দেরের গল্প

নিউজ ডেস্ক | জাগো প্রতিদিন .কম
আপডেট : September 1, 2018 , 12:50 pm
ক্যাটাগরি : গনমাধ্যম
পোস্টটি শেয়ার করুন

সম্রাট : বয়স কত ?
স্বপ্না : কেন বাবু, বয়স শুনলে ২০০ আরো বেশি দেবেন?
সম্রাট : নাম?
স্বপ্না : কেন, নাম দিয়ে ধুয়ে খাবেন? স্বপ্না নাম আমার…
সম্রাট : এমনভাবে কথা বলছো কেন?
স্বপ্না : ভালোভাবে কথা বলার জন্য তো এক্সট্রা পয়সা দেননি বাবু…
সম্রাট : তাই বলে এভাবে কথা বলার জন্যও তো কম পয়সা নাওনি?
স্বপ্না : বাবু, পয়সা তো শুধু শরীরের জন্যই, কেনইবা সময় নষ্ট করছেন, শুরু করুন…
সম্রাট : সিগারেট খেতে পারি একটা?
স্বপ্না : খান না, আমাকে জিজ্ঞেস করছেন কেন?
সম্রাট : নাহ, যদি সমস্যা থাকে…
স্বপ্না : বাব্বা, পারি না গো পারি না… এসে এত ন্যাকামো আসে কীভাবে?
সম্রাট : অমন করে কেন বলছো? সমস্যা তো থাকতেই পারে অনেকের সিগারেটে!
স্বপ্না : বাবু, সমস্যা তো প্রাণীর থাকে, আমরা তো জড় পদার্থ।
সম্রাট : একটু বেশিই বাজে বকছো, সমস্যা আছে কিনা জাস্ট জিজ্ঞেস করলাম…
স্বপ্না : তবে রে, অনেকক্ষন ধরে বড্ডো …চ্ছেন। এবার নিজের সমস্যা দূর করে বিদায় হন তো, শুরু করুন।
সম্রাট : হ্যাঁ।
স্বপ্না : খুলবো? না নিজেই খুলবেন?
সম্রাট : হ্যাঁ ..না… হ্যাঁ আমিই… না…
স্বপ্না : ওহ বুঝেছি, সোনাগাছিতে প্রথমবার?
সম্রাট : হ্যাঁ।
স্বপ্না : কেন? গার্লফ্রেন্ড দেয়নি?
সম্রাট : না না, গার্লফ্রেন্ড টার্ল্ফ্রেন্ড নেই
স্বপ্না : এমন ঝাঁট জ্বালানো পাবলিক হলে গার্লফ্রেন্ড হবেই বা কী করে?
সম্রাট : না না, আমি বিবাহিত।
স্বপ্না : তো? বউ রাতে ডিস্কো গেছে আর আপনি এলেন সোনাগাছি? সত্যিই মাইরি, আপনারা বড়োলোকরাই এমন নাটক করতে পারেন।
সম্রাট : না না, আমি ওই জন্য আসিনি, বউকে খুঁজতে এসেছি।
স্বপ্না : মানে?
সম্রাট : হ্যাঁ, জানেন… রাতে শপিং করে ফিরছিলাম দুজনেই, আমি আর আমার স্ত্রী উত্তরা , হটাৎ চারজন এলো, আমাদের দুজনের মুখে রুমাল চেপে দিলো, জ্ঞান ফিরলো যখন,পরদিন সকালে আমি স্থানীয় একটা হসপিটালে বেডে শুয়ে আছি, উত্তরা নেই, অনেক খুঁজেছি জানেন, কোথাও পাইনি।
স্বপ্না : তা হটাৎ আজ রাতে সোনাগাছিতে একরাতের জন্য বউ খুঁজতে এলেন বুঝি?
সম্রাট : নাহ, বলছি, প্লিজ পুরোটা শুনুন, ওই রাতের ঘটনার ২৬ দিনের মাথায় মানে গতকাল স্ত্রীর ফোন আসে, শুধু বললো সোনাগাছিতে এসে আমাকে নিয়ে যেও, নাম আমার নিশা… আমি কিছু বলার আগেই ফোনটা কেটে দিলো উত্তরা। বুঝতে পেরেছিলাম হয়তো ৫ সেকেন্ডের সুযোগটাই পেয়েছিলো আমাকে জানানোর জন্য, তারপর যতবার ফোন করেছি ওই নম্বরে, ফোন লাগেনি আর… তাই আমি খুঁজতে এসেছি আমার স্ত্রী উত্তরাকে, জানি এত বড় সোনাগাছিতে আমার স্ত্রীকে খোঁজা সম্ভব নয়। শুধু চাই তোমার মতো একজন বন্ধু যে আমার স্ত্রীকে খুঁজে বের করে দেবে এই নরক থেকে। প্লিজ, তুমি খুঁজে দাও তোমাদের নিশা আর আমার উত্তরাকে, যা লাগবে আমি তোমাকে দেবো…
স্বপ্না : আমার দাবি না হয় আপনাকে পরেই বলবো, তবে পারবেন নিজের স্ত্রীকে এখান থেকে ফিরিয়ে নিতে সব কিছু জেনেও?
সম্রাট : কেন পারবো না ? আমি তো বেশ্যা নিশাকে কিনতে আসিনি, স্ত্রী উত্তরাকে ফেরাতে এসেছি… তুমি তো কত দালাল, কত মাসিকে চেনো… প্লিজ ফিরিয়ে দাও আমার উত্তরাকে…
স্বপ্না : আচ্ছা, আপনার নম্বরটা দিয়ে যান, আমি আপনাকে জানাবো। কথা দিলাম যত তাড়াতাড়ি সম্ভব।

(৩ দিন পর সম্রাটকে ফোন করে স্বপ্না)

স্বপ্না : শুনছেন? নিশার খবর পেয়েছি… আমার বিল্ডিংয়ের ডান দিকের ৩ নম্বর বিল্ডিয়েই নিশা থাকে, নতুন তো তাই হাতে ফোন পায়না, আর হ্যাঁ, হয়তো কোনো বাবুর ফোন থেকেই আপনাকে সেদিন ৫ সেকেন্ডের জন্য ফোন করতে পেরেছিলো, নিয়ে যান আপনার নিশাকে।

(সাথে পুলিশ নিয়ে গিয়ে সম্রাট উদ্ধার করলো নিশা ওরফে তার স্ত্রী উত্তরাকে। ফেরার পথে দেখা করতে যায় স্বপ্ন নামের ওই বেশ্যার সাথে)

সম্রাট : কী বলে যে ধন্যবাদ দেবো তোমায়, নিজেও জানি না। এবার বলো তোমার কত টাকা লাগবে?
স্বপ্না : টাকা লাগবে না, বাবু। টাকার থেকেও অনেক বেশি কিছু আপনি আমাকে দিয়ে গেলেন বাবু …
সম্রাট : মানে? কী বলতে চাইছো? কিছুই বুঝলাম না …
স্বপ্না : জানেন বাবু ? আজ থেকে ৩ বছর আগে গ্রামেরই একটা ছেলেকে ভালোবেসে বিয়ে করেছিলাম। খুব ভালোবাসতাম… বাবা-মা মানেনি, তাই পালিয়ে বিয়ে করেছিলাম। জানেন বাবু? বিয়ের ১৯ দিনের মাথায় আমাকে এই নরকে বিক্রি করে দিয়ে যায় মাত্র ১৩ হাজার টাকার জন্য। জানেন বাবু, অনেকবার এখান থেকে পালিয়ে যাবার চান্স পেয়েছিলাম তখন, কিন্তু কোথায় যাবো বলুন? বাবা-মার সামনে কোন মুখে দাঁড়াবো, রাস্তায় নামলেও তো সেই আমাকে ছিঁড়েই খাবে সমাজের বাবুরা রাতের অন্ধকারে। আর দিনের বেলায় খেপি সাজিয়ে রাখবে রেল স্টেশনের চাঁতালে ..তার থেকে বরং এখানে দিব্যি খেতে বাঁচতে তো পারছি… বিশ্বাস করুন বাবু, সেদিন থেকে কোনো পুরুষকে মন থেকে সহ্য করতে পারি না। কোনো পুরুষকে বিশ্বাস করতেও পারিনা। শুধু এটাই মনে হতো, সব পুরুষ সমান। ৩ দিন আগে আপনি আমার সেই ভুল ভাঙলেন। নতুন করে বিশ্বাস করতে শিখলাম, একটা পুরুষ যেমন তার স্ত্রীকে বিক্রি করতেও পারে সোনাগাছিতে, তেমন কোনো পুরুষ তার স্ত্রীকে ফিরিয়ে নিয়ে যেতেও পারে সোনাগাছি থেকে। গতর খাটিয়ে পয়সা তো ৩ বছরে অনেক রোজগার করেছি বাবু, তবে ৩ বছরে যে ভুলটা রোজ ভেবে এসেছি, সেই ভুলটা আপনি ৫ মিনিটেই ভেঙে দিলেন। যেটা পয়সার থেকেও অনেক দামি। যান বাবু, ভালো থাকবেন আপনার উত্তরাকে নিয়ে। অনেক ধন্যবাদ, এই সত্যিটা আমাকে বুঝিয়ে দিয়ে যাবার জন্য, সব পুরুষ সমান নয়… আর হ্যাঁ, কেউ রেখে যায়, কেউ নিয়ে যায়… কেউ রাখতে আসে, কেউ ফেরাতে আসে…