সকাল ৬:২৫ বৃহস্পতিবার ১৮ই জুলাই, ২০১৯ ইং

সাতক্ষীরা জেলা জুড়ে চলছে অবৈধ যানবাহন আটক”

নিউজ ডেস্ক | জাগো প্রতিদিন .কম
আপডেট : আগস্ট ৯, ২০১৮ , ৩:২৩ পূর্বাহ্ণ
ক্যাটাগরি : খুলনা,দেশজুড়ে
পোস্টটি শেয়ার করুন

অবৈধ যানবাহন ও চালকদের বিরুদ্ধে দেশজুড়ে চলছে অভিযান। শিক্ষার্থীদের ‘নিরাপদ সড়ক চাই’ আন্দোলনের প্রেক্ষিতে সারাদেশে ঘোষিত হয় ট্রাফিক সপ্তাহ। এরপরই নড়েচড়ে বসে পুলিশ প্রশাসন। সাতক্ষীরা জেলা জুড়ে চলছে অবৈধ যানবাহন আটক ও কাগজপত্র বিহীন চালকদের নামে মামলা।

রবিবার (৫ আগস্ট) থেকে চলমান অভিযানে জেলার সমস্ত থানাসহ জেলা শহরে প্রায় ১ হাজার মামলা হয়েছে অবৈধ যানবাহন ও মালিকদের বিরুদ্ধে। তবে থেমে নেই অবৈধ যানবাহন তৈরীর কারখানাগুলো।

সাতক্ষীরার পাটকেলঘাটা থানা সদরসহ বিভিন্ন ছোট বড় বাজারগুলোতে চলছে ওয়েল্ডিং ওয়ার্কশপের আড়ালে অবৈধ নসিমন, করিমন, আলম সাধু নামক অবৈধ যানবাহন তৈরীর কাজ।

স্থানীয়দের অভিযোগ প্রশাসনের সামনে অবৈধভাবে এসব মরণযান তৈরী করলেও অজ্ঞাতকারণে কোন ব্যবস্থা নেওয়া হয় না। পাটকেলঘাটা থানা সদর, খলিশখালী বাজার, সরুলিয়া বাজার, মির্জাপুর বাজারে তৈরী হচ্ছে এসব অবৈধ যানবাহন।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এক অবৈধ ইঞ্জিনভ্যান প্রস্তুতকারক জানান, একটি ইজ্ঞিনভ্যান তৈরী করতে ৫০ হাজার টাকা খরচ হয়। প্রশাসন ও সরকার দলীয় কিছু নেতাদের ম্যানেজ করে আমাদের এগুলো তৈরী করতে হয়।

পাটকেলঘাটা সদরের আতিয়ার রহমান বলেন, অবৈধ নসিমন, করিমন, আলম সাধুর কোন কাগজপত্র লাগে না। অবৈধ উপায়ে এসব তৈরী করে লাভবান হয় কারখানা মালিকরা। আর এসব মালিকরা কিছু নেতাদের ম্যানেজ করে অবৈধ এসব কাজ চালিয়ে যায়। তবে প্রশাসন মাঝে মধ্যে অভিযান চালিয়ে দোকান সিলগালা করে দিলেও কিছুদিন পরে আবারো শুরু হয় অবৈধ এসব যানবাহন তৈরীর কাজ।

অবৈধ এসব যানবাহন তৈরীর কারখানা বন্ধ করা না হলে অবৈধ যান বৃদ্ধি ঠেকানো কোন ভাবেই সম্ভব নয়। নসিমন, করিমনের কারণে প্রতিনিয়ত দূর্ঘটনার স্বীকার হতে হয় সাধারণ মানুষের। ঘটে প্রাণহানির মত ঘটনা।

তবে এ বিষয়ে পাটকেলঘাটা থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) রেজাউল ইসলাম এর বক্তব্য ভিন্ন। তিনি বলেন, এগুলো সারাদেশেই চলছে। যতটুকু জানি, কৃষকদের সুবিধার জন্য সরকার এগুলোকে ছাড় দিয়েছে।