রাত ১০:৪৩ শুক্রবার ৪ঠা ডিসেম্বর, ২০২০ ইং

ব্রেকিং নিউজ:

কুমিল্লা দেবিদ্বারে ৫০ টাকার লোভ দেখিয়ে ৭ বছরের শিশুকে ধর্ষণ। | কুমিল্লা সদরে ডিবি পুলিশের অভিযানে অস্ত্র ও ৫ শত পিছ ইয়াবাসহ এক এক যুবক। | সিলেট চেম্বারের পরিচালনা পরিষদের ২০১৯-২০২১ সাল মেয়াদের দ্বি-বার্ষিক নির্বাচন অনুষ্ঠিত | কুমিল্লা সদর দক্ষিণে যাত্রীবাহি বাসচাপায় ৩ মোটরসাইকেল আরোহী নিহত। | মাধবপুরে দুই কেজি গাঁজা সহ ২ মাদক পাচারকারী আটক | ছেলের জন্য সকলের কাছে দোয়া চাইলেন ক্রিকেটার রুবেল | পুত্র সন্তানের বাবা হলেন রুবেল, মা-ছেলে দুজনেই সুস্থ আছেন | মাদক চোরাকারবারীদের ফাঁদে পরে, বিলিনের পথে মাধবপুরের চা শিল্প! | কুমিল্লা সদরে ট্রেনে কাটা পড়ে দুই ষ্কুল শিক্ষার্থী নিহত। আহত-৩ | কুমিল্লায় গোয়েন্দা পুলিশের অভিযানে ৫ হাজার পিছ ইয়াবাসহ সাংবাদিক শামীম আটক। |

৯ বছরে বিএনপির ৩০০ নেতাকর্মী গুম: নজরুল ইসলাম খান

নিউজ ডেস্ক | জাগো প্রতিদিন .কম
আপডেট : April 30, 2018 , 1:11 pm
ক্যাটাগরি : নির্বাচিত,রাজনীতি
পোস্টটি শেয়ার করুন

বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য নজরুল ইসলাম খান বলেছেন, গত ৯ বছরে দলের ১২ হাজার ৮৫০ জনের বেশি নেতাকর্মী হত্যার শিকার হয়েছেন। আপনারা জানলে ভীত হবেন, গত ৯ বছরে বিএনপির ৩০০ নেতাকর্মী গুম হয়েছেন, যারা এখনও ফিরে আসেননি। তিনি অভিযোগ করে বলেন, ‘কারাকর্তৃপক্ষের সুপারিশের পরও খালেদা জিয়ার সুচিকিৎসার ব্যবস্থা নেওয়া হচ্ছে না।’

সোমবার (৩০ এপ্রিল) দুপুরে জাতীয় প্রেসক্লাবের কনফারেন্স লাউঞ্জে গণতান্ত্রিক ফোরাম -এর কেন্দ্রীয় কমিটি আয়োজিত এক আলোচনা সভায় তিনি এ মন্তব্য করেন।

নজরুল ইসলাম খান বলেন,‘এই সরকার ভেবেছিল— বিএনপি বিভক্ত হয়ে যাবে। কিন্তু তার কিছুই হয় নাই। আপনারা জানলে শঙ্কিত হবেন যে, গত তিনবছরে বিএনপির বিরুদ্ধে মামলা হয়েছে ৭১ হাজার, আর আসামি করা হয়েছে ১৮ লাখ নেতাকর্মীকে। আপনারা জানলে আতঙ্কিত হবেন, গত ৯ বছরে দলের ১২ হাজার ৮৫০ জনের বেশি নেতাকর্মী হত্যার শিকার হয়েছেন। আপনি জানলে ভীত হবেন, গত ৯ বছরে বিএনপির ৩০০ নেতাকর্মী গুম হয়েছে, যারা এখনও ফিরে আসেননি। আপনি জানলে খুশী হবেন এবং অবাক হবেন, এতকিছুর পরেও বিএনপি পিছু হটেনি।’

কারাকর্তৃপক্ষের সুপারিশের পরও খালেদা জিয়ার সুচিকিৎসার ব্যবস্থা নেওয়া হচ্ছে না এমন অভিযোগ করে নজরুল ইসলাম খান বলেন, ‘কয়েকদিন আগে কারাকর্তৃপক্ষ স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ে চিঠি দিয়েছে খালেদা জিয়াকে বেসরকারি কোনও হাসপাতালে চিকিৎসার ব্যবস্থার সুপারিশ করে। কিন্তু কেউ তা আমলে নিচ্ছে না। খালেদা জিয়ার বিশেষ ধরনের এমআরআই করা দরকার। তার ফিজিওথেরাপি দরকার। সরকারি হাসপাতালে তা সম্ভব না, কারাগারেও সম্ভব না। আজকের যিনি সরকার প্রধান, তিনি যখন কারাগারে আটক ছিলেন, তার চিকিৎসা স্কয়ার হাসপাতালে করানো হয়েছে। আওয়ামী লীগের বড় নেতারা দীর্ঘদিন বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিক্যাল বিশ্ববিদ্যালয় হাসপাতালে চিকিৎসা নিয়েছেন। সেখানে খালেদা জিয়ার শারীরিক অবস্থার কথা বিবেচনা করে জেল কর্তৃপক্ষের সুপারিশ কেন বিবেচনা করা হচ্ছে না?’